কিশোরীকে গণ ধর্ষণের অভিযোগে পাঁচ অভিযুক্ত গ্রেফতার বারুইপুরে

আমাদের ভারত, দক্ষিণ ২৪ পরগণা, ১৭ মে: বছর পনেরোর এক কিশোরীকে গণ ধর্ষণের অভিযোগ উঠল পাঁচ যুবকের বিরুদ্ধে। অভিযুক্তদের মধ্যে একজন ঐ কিশোরীর প্রেমিকও রয়েছে। অভিযুক্তদের সকলের বয়স ২০ থেকে ২১ এর মধ্যে বলে জানিয়েছে পুলিশ। শনিবার গভীর রাতে বারুইপুর- আমতলা রোডের টংতলা এলাকা থেকে ঐ নাবালিকাকে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার রাতে স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে এ বিষয়ে খবর পেয়ে রাতেই বারুইপুর থানার পুলিশ ওই কিশোরীকে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করে বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। রবিবার সকালে ওই কিশোরীর বয়ানের ভিত্তিতে বারুইপুর থানার
এসআই তাপস মন্ডল ও এএসআই কৃষ্ণকমল ঘোষের নেতৃত্বে এলাকায় তল্লাশি চালিয়ে পাঁচ অভিযুক্তকেই গ্রেফতার করে। ধৃতদের নাম আদিত্য সর্দার, শুভেন্দু মান্না, শান্তুনু দাস, ঋত্বিক বর্ধন ও মিরাজ গাজি। এদের মধ্যে মূল অভিযুক্ত ঐ নাবালিকার প্রেমিক আদিত্য সর্দার স্থানীয় এক তৃণমূল কর্মীর ছেলে। ধৃতদের রবিবার দুপুরে বারুইপুর মহকুমা আদালতে তোলা হয়।

বারুইপুর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইন্দ্রজিত বসু বলেন, “রাতে একটা ঘটনা ঘটে। কিশোরীকে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি করে। এরপরে তার বয়ানের ভিত্তিতে পুলিশ জোরদার তল্লাশি চালিয়ে তার প্রেমিক সহ ৫ জনকে ধরা হয়। গণ ধর্ষণের মামলা হয়েছে। তাড়াতাড়ি গ্রেপ্তারের জন্য বারুইপুর থানার অফিসারদের পুরষ্কার দেওয়া হবে”।

পুলিশ জানায়, কোচপুকুর এলাকায় ওই কিশোরীর বাড়ি। তার সাথে আদিত্য সরদার বলে এক যুবকের প্রেমের সম্পর্ক ছিল গত একমাস ধরে। পুলিশকে ওই কিশোরী জানায় সন্ধ্যে ৬ টার পর তাকে তার প্রেমিক আদিত্য ডেকে পাঠিয়েছিল। এরপর সে সাইকেল করেই দেখা করতে গেলে প্রেমিক তাকে রাস্তার পাশে এক বাগানে নিয়ে যায়। সেখানে আগে থেকেই আরও চারজন ছিল। সবাই মদ্যপ অবস্থায় ছিল। মদ খাইয়ে তাকে গণ ধর্ষণ করে ঐ ৫ জন যুবক। মদ খেয়ে অভিযুক্তরা বেহুঁশ হলে ওই কিশোরী কোনও ক্রমে অন্ধকারের সুযোগ নিয়ে পালিয়ে আসে। রাস্তার কাছে এসে অচৈতন্য হয়ে পড়ে যায়। রাত ১০ টার পর কিশোরীর গোঙানির শব্দ শুনে স্থানীয় বাসিন্দারা তাকে উদ্ধার করে পুলিশে খবর দেন।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here