নলহাটির কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে মিলছে না খাবার, পানীয় জল, অভিযোগ পরিযায়ী শ্রমিকদের

আশিস মণ্ডল, রামপুরহাট, ২ জুন: ভিন রাজ্য থেকে আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের রাখা হয়েছে একটি স্কুলে। কিন্তু তিনদিন ধরে মিলছে না খাবার কিংবা পানীয় জল। প্রশাসন কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় অর্ধাহারে রয়েছেন ছয় জন শ্রমিক। ক্ষোভে ফুঁসছেন শ্রমিকরা।

কেউ কাজ করতেন মুম্বাইয়ে, কেউবা দিল্লিতে। দিন কয়েক আগে তাঁরা ফিরেছেন নিজের জেলা বীরভূমে। এরকমই ছ’জন পরিযায়ী শ্রমিককে রাখা হয়েছে নলহাটি বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠের তিনটি ঘরে। কিন্তু তাঁদের খাবার দেওয়া হছে না। দেওয়া হচ্ছে না নুন্যতম পানীয় জল টুকুও বলে অভিযোগ। বিষয়টি প্রশাসনের সর্বস্তরে জানিয়েও লাভ হয়নি তাদের। সুনাল মুখোপাধ্যায়, শুভ্র চন্দ্র ধর, শ্রীকুমার শর্মা, এদের সকলের বাড়ি নলহাটি ১ নম্বর ব্লক এলাকায়।

সুনাল মুম্বাইয়ের জুহুতে সোনার দোকানে কাজ করতেন। ৩০ মে বাস ভাড়া করে তাঁরা বাড়ি ফিরেছেন। এরপর তাঁকে রাখা হয়েছে নলহাটি বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠে। শুভ্র ট্রেনে একই দিনে এসেছিলেন ট্রেনে। শ্রীকুমার দিল্লি থেকে ট্রেনে এসেছিলেন। তাঁকে ডানকুনি ষ্টেশনে নামিয়ে প্রথমে রাখা হয়েছিল লাভপুর শম্ভুনাথ কলেজে। সেখানে খাবার দাবার ঠিকঠাক ছিল। ৩০ মে তাঁকে নলহাটির বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠে রাখা হয়। তারপর থেকে বন্ধ খাওয়া দাওয়া। শ্রমিকরা বলেন, “যে ঘরে থাকতে দেওয়া হয়েছে তা অস্বাস্থ্যকর। ফ্যান থাকলেও তা ঘোরে না। মশার উপদ্রবে টেকা দায়। তিনদিন ধরে কোনও খাবার দেওয়া হচ্ছে না। ফলে অর্ধাহারে কাটাতে হচ্ছে। তাঁরা বলেন, আমরা পেটের দায়ে বাইরে কাজ করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু নিজের এলাকায় ফিরে এমন দশা হবে ভাবতে পারিনি। প্রশাসন আমদের খাবার দিক, নয়তো বাড়ি ফিয়ে দিক।” বিডিও জগদীশ চন্দ্র বাড়ুইয়ের মোবাইল বন্ধ থাকায় কথা বলা সম্ভব হয়নি। জয়েন্ট বিডিও অরিন্দম মুখোপাধ্যায় বলেন, “বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা নিচ্ছি”।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here