“সিবিআই হেফাজতে থেকে বাইরের ঘটনা কীভাবে জানলেন?” ফিরহাদের হলফনামা নিয়ে একাধিক প্রশ্ন তুললেন বিচারপতি

আমাদের ভারত, ৯ জুন: নারদ কান্ডে অন্যতম অভিযুক্ত ফিরহাদ হাকিমের হলফনামা নিয়ে একাধিক প্রশ্ন তুলল কলকাতা হাইকোর্টের পাঁচ সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ। বিশেষত ১৭মে যেদিন সিবিআই ববিকে গ্রেফতার করেছিল সেদিন হেফাজতে থাকাকালীন, বাইরে কি কি ঘটছে তা কিভাবে জানলেন তিনি? সেই প্রশ্ন তুলেছেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির রাজেশ বিন্দাল।

মঙ্গলবার আইনজীবী অভিষেক মনু সিংভি ববির হলফনামা পেশ করে বলেন, গ্রেফতারের সময় প্রচুর মানুষ তার বাড়ির কাছে অথব তার গাড়ির সামনে চলে এসেছিলেন। কিন্তু তিনি হাতজোড় করে তাদের সকলকে ফিরে যেতে বলেন। ২০১৭ সালে নারদ মামলায় এফআইআর দায়েরের পর থেকে তদন্তে কোনরকম অসহযোগীতা করেননি ফিরহাদ। দাবি করা হয় সিবিআইয়ের দফতরের সামনের সি সি ক্যামেরার ফুটেজ আনা হোক। কোনো মন্ত্রীই বিশেষ আদালতের বিচারকের এজলাসে যাননি। রাজ্যের আইন মন্ত্রী সেদিন আদালত চত্বরে গেলেও তিন তলায় বিচারকের এজলাসে যাননি।

কিন্তু এরপরই হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত বিচারপতি প্রশ্ন তোলেন, অভিযুক্ত কিভাবে এতকিছু জানতে পারলেন? কারা কোথায় গিয়েছিল সেদিন তা তিনি কিভাবে জানতে পারলেন। তিনি তো তখন সিবিআইয়ের হেফাজতে ছিলেন। বাইরে কি হচ্ছে তা তিনি জানলেন কিভাবে? এসব তথ্য তিনি কোথা থেকে পেয়েছেন?

ভারপ্রাপ্ত বিচারপতির প্রশ্নের জবাবে আইনজীবী বলেন, তার আত্মীয়রা গিয়েছিলেন। তাদের কাছ থেকে ববি এসব ঘটনা সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। অন্যদিকে সিবিআইয়ের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে অভিষেক মনু সিংভি বলেন, বিশেষ আদালতে তিন থেকে চার ঘণ্টা কেউ ঢুকতে পারেনি। একথা বলা যায় না। সিবিআই সশরীরে গিয়ে আদালতে চার্জশিট জমা দিয়েছিল। অথচ নিজেরাই ভার্চুয়ালি শুনানির আবেদন করে। ওই আদালতে সেদিন আরও মামলা হয়েছে। সেখানে শুধু সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতে সমস্যা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছে সিবিআই। বলা হচ্ছে হাজার মানুষের ভিড় ছিল। কিন্তু বাস্তবে কোথাও তা দেখা যায়নি। সিবিআই তরফে কলকাতা পুলিশের কাছে কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here