কুমারগঞ্জে অঞ্চল কমিটি বদলাতেই চারটি তালা পড়ল তৃণমূলের পার্টি অফিসে, গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব উসকে কাঠগড়ায় বিধায়ক

কুমারগঞ্জে অঞ্চল কমিটি বদলাতেই চারটি তালা পড়ল তৃণমূলের পার্টি অফিসে, গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব উসকে কাঠগড়ায় বিধায়ক

আমাদের ভারত, বালুরঘাট, ১২ সেপ্টেম্বর: অঞ্চল কমিটির বদলে, দলীয় কার্যালয়ে ঝুলল চারটি তালা। দিনভর বন্ধ তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়। প্রকাশ্যে আসলো গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। বিধায়ককে দায়ী করে কাঠগড়ায় তুললেন দলেরই প্রাক্তন বিধায়িকা। শোরগোল দক্ষিণ দিনাজপুরের কুমারগঞ্জে। এলাকার সমজিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের মোল্লাদিঘিতে তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ে নেতৃত্বদের চার চারটি তালা ঝোলানোর ঘটনাকে ঘিরেই আলোড়ন ছড়িয়ে পড়ে।

সম্প্রতি দক্ষিণ দিনাজপুরে রাজ্যের নির্দেশে ৬০ জনের জেলা কমিটি ঘোষণা করেছেন জেলা তৃণমূল সভাপতি। বিধানসভা অনুযায়ী চেয়ারম্যান ও কনভেনার করে নিজ নিজ এলাকায় দল পরিচালনার দায়িত্ব দিয়েছেন বিধায়কদের কাঁধে। যাদের উপর নিজ নিজ এলাকার অঞ্চল কমিটি গড়ার দায়িত্বও অর্পিত হয় ওইদিনের সভা থেকে। এদিন কুমারগঞ্জ ব্লকের সমজিয়াতে নতুন অঞ্চল কমিটির নাম সামনে আসতেই প্রকাশ্যে আসে দলের অন্দরে থাকা গোষ্ঠীবাজি। খোদ বিধায়কের এলাকাতেই এমন গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফলে বিপাকে পড়েছেন নেতৃত্বরা। এদিনের তালিকা অনুযায়ী পূর্বের অঞ্চল সভাপতি লোকমান হোসেনকে সরিয়ে নতুন সভাপতি করা হয় সাবের আলী সরকারকে। যেখানে কার্যকরী সভাপতি হিসাবে নাম উঠে আসে নীতিশ বসাক ও জাহেদুর সরকারের নাম। এই ঘটনার প্রতিবাদে দলীয় কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয় স্থানীয় নেতৃত্বরা। তাঁদের দাবি, নতুন কমিটিতে স্থান পাওয়া অধিকাংশ নেতৃত্বই যুক্ত এলাকার নানান অসামাজিক কাজে।

স্থানীয় বাসিন্দা মিন্টু দাস জানিয়েছেন, প্রতিদিন কার্যালয় খোলা থাকে। তবে এদিন চারটি তালা দেখে নিতান্তই অবাক হয়েছেন। ঘর তালা বন্দি থাকায় কাউকেই দেখা যায়নি এলাকায়।

প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়িকা মাহমুদা বেগম জানিয়েছেন, ড্যামেজ কন্ট্রোলে দিওর ও সমজিয়াতে আলোচনা করে কমিটি গড়বার পরামর্শ দিয়েছিলেন। কিন্তু এখানে তা করা হয়নি। বিধায়ক তাঁর নিজের মতো করে অঞ্চল কমিটি গড়েছে। যার খেসারত দলকেই দিতে হবে।

যদিও এমন সব বিষয় উড়িয়ে কুমারগঞ্জের বিধায়ক তথা বিধানসভা এলাকার চেয়ারম্যান তোরাব হোসেন মন্ডল জানিয়েছেন, তালা ঝোলানোর বিষয় জানা নেই। তবে সকলের সাথে আলোচনা করেই অঞ্চল কমিটি গঠন করা হয়েছে। জেলা পরিষদ সদস্য ইরা রায় জানিয়েছেন, বিষয়টি শুনেছেন। দলের বিষয়, জেলা নেতৃত্বকে জানাবেন।

জেলা তৃণমূল সভাপতি অর্পিতা ঘোষ জানিয়েছেন, অঞ্চলের বিষয় চেয়ারম্যানই দেখবেন। তবে বড় কোনও সমস্যা হলে তিনি হস্তক্ষেপ করবেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two + 14 =

amaderbharat.com

Welcome To Amaderbharat.com, Get Latest Updated News. Please click I accept.