এবার থেকে রাস্তায় থুতু ফেললেই খসবে ৫ হাজার টাকা, হতে পারে গারদপ্রাপ্তি

রাজেন রায়, কলকাতা, ৩০ এপ্রিল: রাস্তায় চলতে চলতে পানের পিক ফেলার অভ্যেস থাকে অনেকেরই। অনেকে আবার কারণে-অকারণেও থুতু ফেলেন। বিশেষ ধর্মীয় কারণেও থুতু ফেলতে হয় অনেককে। কিন্তু এবার রাস্তাঘাটে থুতু ফেলার আগে সাবধান। থুতু ফেলার সঙ্গে সঙ্গেই আপনার পকেট থেকে জরিমানা বাবদ গলে যেতে পারে কড়কড়ে ৫০০০ টাকা। এমনকি আপনি নিজেকে খুঁজে পেতে পারেন শ্রীঘরেও।

বারবার বলেও না শোনায় অবাধ্য শহরবাসীকে নিয়ন্ত্রণে আনতে এবার ‘ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অ্যাক্ট’ ও ‘ওয়েস্ট বেঙ্গল প্রহিবিশন অফ স্মোকিং অ্যান্ড স্পিটিং অ্যান্ড প্রোটেকশন অফ নন স্মোকার্স অ্যান্ড মাইনর অ্যাক্ট’ নামক বিশেষ আইনে মামলা দায়ের শুরু করল পুলিশ। বুধবার এই কারণে ধৃত নিউ আলিপুরের এক বাসিন্দার বিরুদ্ধে চলতি মহামারীতে দায়ের হয়েছে প্রথম মামলা।
জানা গিয়েছে, এই জোড়া ধারার মামলা করোনার আবহে কলকাতায় এই প্রথম। ওয়েস্ট বেঙ্গল প্রহিবিশন অফ স্মোকিং অ্যান্ড স্পিটিং অ্যান্ড প্রোটেকশন অফ নন স্মোকার্স অ্যান্ড মাইনর অ্যাক্ট’ এই আইনে অভিযুক্তের এক হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে, অথবা আদালতের নির্দেশে হতে পারে জেলের মতো শাস্তিও।

কলকাতা পুলিশের তরফে আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, যত্রতত্র থুতু ফেললেই গ্রেফতার করা হবে। কারণ থুতু থেকে করোনা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। কিন্তু তার পরেও মানুষ নিয়ম মানতে চাইছিলেন না। এবার এই ধারায় মামলা দায়ের করে কলকাতা পুলিশও কার্যত স্পষ্ট বার্তা দিয়ে দিল যে, এবার থেকে আইন মেনে না চললে বিশেষ আইনেই মামলা দায়ের করা হবে। প্রত্যেক দিন গড়ে ৫০ জনকে শহরে এই কারণেই গ্রেফতার করা হচ্ছে।

জানা গিয়েছে, বুধবার নিউ আলিপুরের ডি ব্লকে এক মধ্যবয়স্ক ব্যক্তিকে রাস্তার উপর থুতু ফেলতে দেখা যায়। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে এই ধারা প্রয়োগ করে। এখন থেকে থুতু ফেললেই এই আইন প্রয়োগ করা হবে বলে কলকাতা পুলিশ সূত্রের খবর। তাই এবার রাস্তাঘাটে থুতু ফেলার আগে খুব সাবধান!

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here