প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস, বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকের বাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন প্রেমিকা

প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস, বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকের বাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন প্রেমিকা

আমাদের ভারত, উত্তর দিনাজপুর, ১৩ আগস্ট:
বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারিরীক সম্পর্কের পর বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকের বাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন প্রেমিকা। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার চোপড়া থানার ধিয়াগর গ্রামে। এই ঘটনায় এলাকায় ব্যপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, চোপড়া থানার কাচাকলি গ্রামের বাসিন্দা রমিসা খাতুনের ভালবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল ধিয়াগর গ্রামের বাসিন্দা মনজর আলমের সঙ্গে। দীর্ঘ দুই বছর তাদের এই সম্পর্ক। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শিলিগুড়ি সহ বিভিন্ন এলাকায় রাত্রিবাস করে তারা। সম্প্রতি মনজর আলমের পরিবারের চাপে সে বিয়ে থেকে পিছিয়ে আসে।এনিয়ে আগেও গ্রাম্য শালিশী হয়। সবকিছুতেই মনজরকে দোষী সাবস্ত করে রমিসাকে বিয়ে করার নিদান দেন গ্রামের মোড়লেরা। কয়েকদিন যাবদ মনজরের সঙ্গে কোনও যোগাযোগ না হওয়ায় মঙ্গলবার তার বাড়িতে পৌঁছে যায় রমিসা। এদিন মনজেরের পরিবার রমিসাকে মেরে গায়ে লঙ্কার গুড়া ছিটিয়ে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।বিয়ে করার দাবিতে মনজরের বাড়ির সামনে ধর্নায় বসেছে রমিসা। তার দাবি, যতক্ষণ মনজর তাকে বিয়ে না করছে ততক্ষণ সে এখানেই বসে থাকবে।

এলাকার মানুষ এবং স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতারাও জানিয়েছেন, সর্বসন্মতিক্রমে বিয়ের সিদ্ধান্ত হয়েছিলেন। সিদ্ধান্ত মেনে না নিলে আইনের দ্বারস্থ হবেন। মনজরের মায়ের অভিযোগ, প্রতিবেশীরা তার ছেলেকে ফাঁসিয়ে দিয়েছে। ছেলে নির্দোষ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 + eight =