ট্রেনের ভাড়া ইচ্ছামত নেওয়ার অধিকার থাকবে বেসরকারি রেল সংস্থার, জানিয়ে দিল সরকার

আমাদের ভারত, ১৮ সেপ্টেম্বর: যে বেসরকারি সংস্থা ট্রেন চালাবে তারা ইচ্ছে মতো বিভিন্ন রুটে ভাড়া নিতে পারবে। বেসরকারি সংস্থাগুলিকে ইচ্ছেমতো ট্রেনের ভাড়া স্থির করার অধিকার দেওয়া হবে। তবে ওই একই রুটে এয়ারকন্ডিশন বাস ও প্লেন চলবে। তাই ভাড়া ঠিক করার সময় বেসরকারি সংস্থাকে এই বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে। এমনটাই জানিয়েছেন রেলওয়ে বোর্ডের চেয়ারম্যান বি কে যাদব।

বরাবর রেলের ভাড়া অত্যন্ত সংবেদনশীল বিষয় ভারতবর্ষের ক্ষেত্রে। ভারতের প্রতিটি ট্রেন যত যাত্রী বহন করে,তা অস্ট্রেলিয়ার সম্পূর্ণ জনসংখ্যার সমান। দেশের দরিদ্র মানুষের এক বিরাট অংশ যাতায়াত করে এই ট্রেনে। কিন্তু বেশ কয়েক দশক ধরে নানা সমস্যায় ভুগছে ভারতীয় রেল। তাই ট্রেন চালানো থেকে শুরু করে স্টেশনের আধুনিকীকরণ সহ প্রতিটি বিষয়ে বেসরকারি বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছে মোদী সরকার।

করোনার কারণে সংকুচিত হচ্ছে দেশের অর্থনীতি। তাই এই অবস্থায় রেলের জন্য বেশি পরিমাণে বরাদ্দ করা সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়। রেল পরিষেবা চালু রাখতে বেসরকারি পুঁজি আহ্বান পিছনেও এটা একটা কারণ। রেলওয়ে বোর্ডের চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, আলস্টম এস এ, বন্ডইয়ার্ড ইনকর্পোরেটেড, জিএমআর ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেড এবং আদানি এন্টারপ্রাইসেস লিমিটেড ইতিমধ্যেই রেলে বিনিয়োগের ব্যাপারে বিশেষ আগ্রহী। আগামী পাঁচ বছরে ৫৫ হাজার টাকার বেশি বিনিয়োগ আসার সম্ভাবনা রয়েছে রেলে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

২০২৩ সালের মধ্যে দেশে বুলেট ট্রেন চালানোর জন্য জাপান থেকে কম সুদে ঋণ পেতে পারে মোদী সরকার। কিন্তু তার আগে রছলের পরিষেবার আধুনিকীকরণ প্রয়োজন। সেই জন্য ইতিমধ্যেই যাত্রীবাহী ট্রেনের গতি বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। গত জুলাই মাসে সরকার ঘোষণা করেছে বেসরকারি সংস্থাকে ১৫১টি যাত্রীবাহী ট্রেন চালানোর অনুমতি দেওয়া হবে। নয়াদিল্লি ও মুম্বাই রেল স্টেশনের আধুনিকীকরণের দায়িত্ব দেওয়া হবে বেসরকারী সংস্থার হাতে।

১৭ জুলাই রেলওয়ে বোর্ড প্রতিটি জোনাল রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজারকেচিঠি দিয়ে বলেছেন রেলের ব্যবসা বাড়াতে হবে। ব্যবসা কতদূর বাড়ল তা এবার থেকে নিয়মিত খতিয়ে দেখবে রেলের বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ইউনিট। ২০২৪-র মধ্যে রেলের পণ্য পরিবহন যাতে দ্বিগুণ করা যায় সেজন্য টার্গেট ঠিক করে পরিকল্পনা করা হয়েছে। প্রতিটি জোন পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করছে কিনা তার নজর রাখার জন্য রেলে তৈরি হয়েছে বিশেষ ড্যাশবোর্ড। প্রতিটি ডিভিশনকে নিজস্ব মার্কেটিং প্ল্যান তৈরি করতেও বলা হয়েছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here