মুখ্যমন্ত্রীর তরফে বিজেপির পাল্টা চিঠি রাষ্ট্রপতিকে, ইঙ্গিত দেওয়া হল বিজেপি বিধায়কের মৃত্যুর পেছনের অন্য রহস্যের

আমাদের ভারত, ১৫ জুলাই: হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়কের মৃত্যুর ঘটনায় রাষ্ট্রপতিকে বিজেপির তরফে চিঠি দেওয়ার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার পাল্টা চিঠি লিখলেন রাষ্ট্রপতিকে। বুধবার সকালে সেই চিঠি রাষ্ট্রপতি ভবনে গিয়ে রাষ্ট্রপতির হাতে তুলে দিয়েছেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন। এই চিঠিতে বিধায়কের মৃত্যুর পেছনে অন্য রহস্যের ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবারই উত্তর দিনাজপুরের হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক মৃত্যু ইস্যুতে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করে বিজেপির একটি প্রতিনিধি দল। রাজ্যে আইন শাসন নেই বলে অভিযোগ করেছিলেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়ের নেতৃত্বাধীন ওই দল। একইসঙ্গে রাজ্য বিধানসভা রাষ্ট্রপতিকে ভেঙে দেওয়ার দাবি জানিয়ে এসেছেন তারা। আর সেই চিঠিরই পাল্টা চিঠি দিয়েছেন আজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেছেন, বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের মৃত্যুর ঘটনা কোনোভাবেই রাজনৈতিক নয়। ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট তুলে ধরে তিনি লেখেন, প্রাথমিক তদন্তে উঠে এসেছে উনি আত্মহত্যাই করেছেন। দেবেন্দ্রনাথ রায়ের মৃত্যুর পেছনে টাকা লেনদেন সংক্রান্ত বিবাদ রয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী চিঠিতে আরও দাবি করেছেন, “বিজেপি আপনাকে বিকৃত তথ্য পরিবেশন করেছে”। এই চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন, পশ্চিমবঙ্গের সরকার সমস্ত দলের বিধায়কের যথাযোগ্য মর্যাদা দেয়। দেবেন বাবু প্রথমে সিপিএমের হয়ে জিতেছিলেন। পরে বিজেপিকে সমর্থন করেন।

মুখ্যমন্ত্রীর চিঠি স্বপক্ষে একটি তথ্য রাষ্ট্রপতিকে দেওয়া হয়েছে‌। সেখানে দেখা যাচ্ছে দেবেন রায় একটি ক্রেডিটডি সোসাইটির মাথায় বসে ছিলেন। ওই সোসাইটির ২কোটি ৬০ লক্ষ টাকার হিসেব পাওয়া যাচ্ছে না। তাহলে কি হিসেব গড়মিলের সামাল দিতে না পেরে আত্মহত্যা করেছেন তিনি? সেই প্রশ্নের ইঙ্গিত ছুঁড়ে দেওয়া হয়েছে ওই চিঠিতে।

মুখ্যমন্ত্রী তরফে গোটা বিষয়টি সিআইডি তদন্ত করছে বলেও আশ্বস্ত করা হয়েছে। এককথায় বলা যায় দেবেন্দ্র রায়ে মৃত্যু নিয়ে তৃণমূলে বিজেপির তরজায় মুখ্যমন্ত্রী লেখা চিঠিই এখন তৃণমূলের হাতিয়ার হবে প্রচারের ক্ষেত্রে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here