ঐতিহ্যফলক বসলো মানিকতলার মুরারিপুকুরে

অশোক সেনগুপ্ত, আমাদের ভারত, ২০ মে: দীর্ঘ অপেক্ষার পর শুক্রবার স্বাধীনতা সংগ্রামের স্মৃতিবিজরিত ফলকের আবরণ উন্মোচন হল মানিকতলার মুরারিপুকুরে।

ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে আলিপুর বোমা মামলার গুরুত্বের কথা অনেকে জানেন। মুরারিপুকুরে শ্রী অরবিন্দের পৈতৃক বাগানবাড়ি থেকে ১৯০৮-এর ৩ মে একসঙ্গে ১৪ জন সশস্ত্র বিপ্লবীর গ্রেফতার একটা উল্লেখযোগ্য ঘটনা। তাঁদের নাম খোদাই করা শ্বেতপাথরের ফলক স্থাপন করা হল এদিন।

অরবিন্দ ভবনের তরফে এদিন এই প্রতিবেদককে জানানো হয়, “তিন দশকেরও বেশি আগে জয়া মিত্র (জয়াদি) কলকাতায় শ্রী অরবিন্দের স্মৃতির সাথে জড়িত কিছু জায়গায় স্মারক ফলক স্থাপনের গুরুদায়িত্ব নিয়েছিলেন। স্থানগুলির মধ্যে ‘মুরারিপুকুরের মানিকতলা উদ্যান’ বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। শুধুমাত্র শ্রী অরবিন্দের জীবনেই নয়, ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের ইতিহাসেও। এটি মূলত শ্রী অরবিন্দের বাবা ডঃ কে ডি ঘোষের মালিকানাধীন একটি সম্পত্তি। এই ঠিকানা থেকেই বারীন ঘোষ এবং নলিনী কান্ত গুপ্ত সহ চৌদ্দ জন বিপ্লবীকে আলিপুর বোমা মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছিল। এখানে স্মারক ফলকটি ১৫ আগস্ট, ১৯৯০-তে শ্রী অরবিন্দের জন্মবার্ষিকীতে স্থাপন করা হয়। দুর্ভাগ্যবশত, সময়ের বিপর্যয়ের কারণে মূল ফলকটির আর অস্তিত্বে নেই। আমরা আনন্দিত শুক্রবার সন্ধ্যায় মুরারিপুকুরে আনুষ্ঠানিকভাবে স্মারক ফলকটি পুনরায় স্থাপন করায়। এটা মূলত হয়েছে শ্রী অরবিন্দ কেন্দ্রগুলোর প্রাচীন প্রতিষ্ঠান শ্রী অরবিন্দ পাঠমন্দিরের নেতৃত্বে অনুপ্রাণিত প্রচেষ্টায়।”

মুরারিপুকুরের ঐতিহাসিক ঘটনার ১১৪ বর্ষপূর্তিতে এবছর ৩ আগস্ট এই প্রতিবেদক ঘটনাস্থলে যান। খোঁজখবর করতে যোগাযোগ করেন অরবিন্দ ভবনের অন্যতম কর্তা তথা রাজ্যের অর্থ দফতরের অন্যতম আধিকারিক বিশ্বজিৎ গাঙ্গুলির কাছে। তিনি জানান, ওঁরা ওখানে আলিপুর বোমা মামলার কিছু বিপ্লবীদের নামফলক বসাতে চান। এ ব্যাপারে বিধায়ক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছিলেন। তারপর উনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। মারা যান। ফলকটি তৈরি হয়ে পড়ে আছে।

এই প্রতিবেদক সঙ্গে সঙ্গে কলকাতা পুরসভার স্থানীয় (১৪ ওয়ার্ড) তৃণমূল পুরপিতা অমল চক্রবর্তীকে ফোনে বিষয়টা বলেন। উনি আশ্বাস দেন। সেটা বিশ্বজিৎবাবুকে ফোনে জানিয়ে ওটি স্থাপনের দিন নির্দ্ধারণের আবেদন করেন এই প্রতিবেদক। সচিত্র প্রতিবেদন ভাগ করেছিলাম সামাজিক মাধ্যমে। শুক্রবার বসল সেই স্মৃতিফলক।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here