কাঁথিতে গৃহবধূর মৃত্যু ঘিরে উত্তেজনা, শ্বশুর বাড়িতে ভাঙ্গচুর

আমাদের ভারত, পূর্ব মেদিনীপুর, ৩০ জুন: কাঁথি শহরে গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘিরে চাঞ্চল্য। মৃতার পরিবারের অভিযোগ, তাদের মেয়েকে খুন করা হয়েছে। এই অভিযোগে মেয়ের শ্বশুরবাড়ির লোকজনের ওপর হামলা চালাল বাপের বাড়ির লোকজন। রীতিমতো কিল, চড়, ঘুষি, লাথি খেতে হল মৃত গৃহবধূর স্বামী, শাশুড়ি ও দেওরকে।

মৃত গৃহবধূর নাম রীনা জানা। বয়স ২৭ বছর। গৃহবধূর স্বামীর নাম রাসরঞ্জন জানা। মৃতার শ্বশুর বাড়ি কাঁথি থানার পশ্চিম দারুয়া গ্রামে। বাবার বাড়ি এগরা থানার বড় নলগেড়িয়া গ্রামে। আট বছর আগে বিয়ে হয় তাদের। আজ সকালে বন্ধ ঘরের ভেতর ঝুলন্ত অবস্থায় স্ত্রীর মৃতদেহ দেখতে পান স্বামী। খবর পেয়ে মেয়ের শ্বশুর বাড়িতে ছুটে আসেন তার বাপের বাড়ির লোকজন। মেয়ের স্বামী, শাশুড়ি ও দেওরকে রীতিমতো কিল চড় ঘুষি লাথি মারতে থাকেন মেয়ের বাপের বাড়ির লোকজন। পরিকল্পনা করে খুন করা হয়েছে, অভিযোগ মৃত গৃহবধূর বাপের বাড়ির লোকজনের। গৃহবধূর মা বিন্দু গিরির অভিযোগ, তার মেয়ের সাথে খারাপ ব্যবহার করত শ্বশুরবাড়ির লোকজন। মেয়ের শ্বশুর বাড়িতে এলে কোনও দিন বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। বিয়ের পর আট বছর কেটে গেলেও কোনওদিন বাপের বাড়ি যেতে দেওয়া হয়নি মেয়েকে। যদিও গৃহবধূর বাবার বাড়ির তোলা অভিযোগ অস্বীকার করেছে মেয়ের স্বামী, শাশুড়ি ও দেওর। তারা বলেন, সবকিছুই স্বাভাবিক ছিল। তবু কেন এই আত্মহত্যা তারা বুঝে উঠতে পারছেন না।

গন্ডগোলের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে কাঁথি থানার পুলিশ। মৃত মহিলার দেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে পাঠিয়েছে। গৃহবধূর স্বামী, শাশুড়ি ও দেওরকে উত্তেজিত জনতার হাত থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here