শারীরিক বৈশিষ্ট্য দেখে কুমারী মেয়ে কিভাবে চিনবেন?

শারীরিক বৈশিষ্ট্য দেখে কুমারী মেয়ে কিভাবে চিনবেন?

আমাদের ভারত ডেস্ক, ১৬ মার্চ: অনেক পুরুষই বিয়ের আগে কুমারী মেয়ে চেনা নিয়ে উদ্বেগে থাকেন। অনেকে আবার অক্ষতযোনী মেয়ে না পেলে তুলকালাম কাণ্ড বাধিয়ে ফেলেন। আসলে জন্মের পর কৈশোরে পদার্পন থেকে বিয়ের আগে পর্যন্ত একটা মেয়ের শারীরিক গঠন যেরকম থাকে বিয়ের পরে সেটা আর সেরকম থাকে না। পরিবর্তন হয়ে যায় শারীরিক প্রয়োজনেই। এটা প্রকৃতিতে স্বাভাবিক।

তাহলে কুমারী মেয়ে চেনার উপায় কি? আগেই বলে রাখি কুমারী মেয়ে চেনার জন্য সাধারণত তেমন কোনও লক্ষণ নেই। তবে মেয়েদের যোনী এবং স্তন দেখে মোটামুটি কমারী মেয়ে চেনা যায়। তবে অনেক মেয়ের বংশগতভাবেই স্তন বড় থাকে। এমনও ঘটনা দেখা গেছে যে, একটি মেয়ের স্তন বেশ বড়, কিন্তু কোনও ছেলেকে চুম্বন করা তো দূরের কথা, কখনো হস্তমৈথুন এবং সেক্স পর্যন্ত করেনি।

তার মানে কী এই দাড়াঁবে যে, মেয়েটি কুমারীত্ব হারিয়েছে?
মোটেই নয়। আবার এমনও ঘটনা রয়েছে যে, কোন মেয়ে তার জীবনে প্রথম সেক্স করেছে, কিন্তু কোন রক্তপাত হয়নি। তার মানে কিন্তু এই নয় যে, আপনার আগে কোন পুরুষ তার কুমারীত্ব নিয়েছে। আসলে কুমারী মেয়ে চেনার তেমন কোন লক্ষণ নেই। তবুও নিম্নে যোনী এবং স্তন দেখে ভার্জিন মেয়ে চেনার কয়েকটি লক্ষণ তুলে ধরা হলো:
যোনীঃ

১. ল্যাবিয়া মেজরা অর্থাৎ বাইরের পাপড়ি প্রায় সম্পূর্ণ ভাবে একসাথে লেগে থাকবে এবং যোনীমুখ দেখা যাবে না।
২. ল্যাবিয়া মাইনরা অর্থাৎ ভিতরের পাপড়িও সম্পূর্ণভাবে বন্ধ থাকবে এবং ল্যাবিয়া মেজরা দিয়ে ঢাকা থাকবে পুরোটাই। ল্যাবিয়া মেজরা না সরালে দেখা যাবে না।
৩. হাইমেন অর্থাৎ সতিচ্ছদ অক্ষত থাকবে। যদিও অনেক কারনেই ছিঁড়ে যেতে পারে। এটি ছিঁড়লে সাধারণত রক্তক্ষরণ হয়।
৪. ল্যাবিয়া মাইনরার নিচের প্রান্ত একত্রে থাকবে।
৫. ক্লিাটোরিস বা ভগাঙ্কুর খুব ছোট এবং এর আবরণকারী চামড়াও পাতলা হবে।
৬. যোনীপথ সরু এবং ভিতরের ভাঁজগুলি কম মসৃণ হবে। ভাজ অনেক বেশি হবে।

স্তনঃ
১. স্তন ছোট হবে।
২. চ্যাপ্টা হবে, গোল নয়।
৩. দৃঢ় হবে, তুলতুলে নয়।
৪. স্তনের বোটার চারপাশে যে গাঢ় অংশ থাকে তার রঙ গোলাপি থেকে হালকা বাদামী রঙ এর মতো হবে (কম গাঢ় রঙ হবে) এবং এই অংশ আয়তনে ছোট হবে।

৫. নিপলের আকার ছোট হবে।

সিউডোভারজিন বা নকল কুমারীঃ অনেক সময় অনেক মেয়ের কয়েকবার যৌনমিলনের পরেও হাইমেন বা সতীচ্ছদ অক্ষত থাকে। এদের সিউডোভারজিন বা নকল কুমারী বলা হয়। তবে এর হার অনেক কম।

সাধারণত এভাবেই একটা মেয়ের কুমারীত্ব চিহ্নিত করা যায়। তবে যেসব মেয়ে বেশি খেলাধুলা বা শরীরচর্চা করে, সাইকেল অথবা মোটরসাইকেল চালায়, ঘোড়ায় চড়ে এবং হস্তমৈথুন করে তাদের হাইমেন বা সতীচ্ছদ ছিঁড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 + 9 =

amaderbharat.com

Welcome To Amaderbharat.com, Get Latest Updated News. Please click I accept.