সুনীল সিং’কে দলে নিলে ব্যাপক গণ্ডগোল শুরু হবে, হুমকি তৃণমূল নেতার

প্রতীতি ঘোষ, ব্যারাকপুর, ১৩ জুন:
নোয়াপাড়ার প্রাক্তন বিধায়ক সুনীল সিংয়ের তৃণমূলের ফেরা নিয়ে আপত্তি তুলল স্থানীয় নেতৃত্ব। রাতারাতি সুনীল সিং কে দলে না ঢোকার আর্জি জানিয়ে পোস্টার পড়লো নোয়াপাড়ার বিভিন্ন এলাকায়।

বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি তথা কৃষ্ণনগরের বিধায়ক মুকুল রায় ও তাঁর পুত্র বীজপুরের প্রাক্তন বিধায়ক শুভ্রাংশু রায়। তারপর থেকেই মুকুল রায়ের দীর্ঘদিনের ছায়াসঙ্গী নোয়াপাড়া কেন্দ্রের প্রাক্তন বিজেপি বিধায়ক সুনীল সিং কে বেসুরো হতে দেখা যায়। তিনি বলেন, মুকুল রায়ের বিজেপি ছাড়াটা দলের কাছে অনেক বড় ক্ষতি। তারপরেই শুরু হয় রাজনৈতিক চাপানউতোর। সুনীল সিং আরো বলেন আগামী দিনে দেখা যাক কি হয়। সুনীল সিংয়ের এহেন প্রতিক্রিয়াতে তার তৃণমূলে ফেরার জোর জল্পনা শুরু হয় রাজনৈতিক মহলে। আর সুনীল সিংয়ের তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন নিয়ে বেজায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছে নোয়াপাড়ার তৃণমূল নেতা ও কর্মীরা। সুনীল সিংকে তৃণমূলে নেওয়া হলে ব্যাপক গণ্ডগোল শুরু হবে বলে জানালেন নোয়াপাড়া বিধানসভার অন্তর্গত গারুলিয়া পৌরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করে গারুলিয়া শহর তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যকরী সভাপতি পঙ্কজ দাস। তিনি বলেন, নোয়াপাড়ার প্রাক্তন বিধায়ক যদি দলে ফিরতে চান তাহলে আমরা এর ঘোরবিরোধীতা করব। উনি তৃণমূলে থাকা কালীন কর্মীদের সাথে নিয়ে সে ভাবে কোনও কাজ করেননি। উল্টে তৃণমূলে থেকে তৃণমূল কর্মীদের ওপর অত্যাচার করেছেন সুনীল সিং।”

তৃণমূল নেতা আরো অভিযোগ করেন যে সুনীল সিং ২০১৬ ও ২০১৯ এ নির্বাচনে তৃণমূলের প্রার্থীদের হারিয়ে দিয়েছিলেন। তাই সুনীল সিং তৃণমূলে যোগ দিতে চাইলে তাকে দলে নেওয়া যাবে না।

অপর দিকে সুনীল সিং তৃণমূল নেতা পঙ্কজ দাসের নাম না করে বলেন, “আমি তো একবারও বলিনি যে আমি বিজেপি ছেড়ে চলে যাচ্ছি, আর যে নিজে কাউন্সিলর ভোটে হেরে যায় তার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার মত আমার ইচ্ছা নেই। আর আমার বিরুদ্ধে কে রাস্তায় নেমে আন্দোলন করবে তাতে আমার কিছু যায় আসে না। আমি কোনও দিন কোনও তৃণমূল নেতা কর্মীদের ওপর অত্যাচার করিনি।”

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here