ছট পুজো নিয়ে বিরোধিতার সাহস থাকলে সামনে এসে করুন, হুঙ্কার ফিরহাদের

রাজেন রায়, কলকাতা, ১৮ সেপ্টেম্বর: করোনা পরিস্থিতিতে যাতে বিকল্প জলাশয়ের ব্যবস্থা করতে না হয়, তার জন্য রবীন্দ্র সরোবরেই ছটপুজোর আয়োজন করতে চেয়ে জাতীয় পরিবেশ আদালতে আবেদন জমা দিয়েছিল কেএমডিএ। কিন্তু বৃহস্পতিবার জাতীয় পরিবেশ আদালত সেই দাবি নাকচ করে দেওয়ায় উলটে মুখ পুড়েছে রাজ্য সরকারের। যদিও পুরো বিষয়টি বিরোধীদের ষড়যন্ত্র বলে দাবি পুর ও নগরোন্নয়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের। এ দিন তিনি বলেন, “ছট পুজো নিয়ে রাজনীতি করছে বিরোধীরা। রবীন্দ্র সরোবরে ছট পুজো নিয়ে যারা বিরোধিতা করছেন, তাদের সাহস থাকলে সামনে এসে করুন।”

শুক্রবার নাম না করেই এভাবেই কড়া ভাষায় রাজ্য বিজেপির সমালোচনায় সরব হলেন কলকাতা পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম। তাঁর কথায়, “বিরোধীরা শাঁখের করাতের মতো। দু’দিক থেকেই সরকারকে পর্যদুস্ত করতে চাইছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত ধর্মীয় উৎসব পালনের স্বাধীনতা রয়েছে। যারা বাইরের রাজ্য থেকে এই রাজ্যে এসেছেন তাদের কখনোই যেন অবহেলিত না মনে হয় সেজন্য যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে রাজ্য সরকার।”

প্রসঙ্গত, রবীন্দ্র সরোবরে ছট পূজা করার অনুমতি চেয়ে পরিবেশ আদালতে আবেদন জানিয়েছিল কলকাতা মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (কেএমডিএ)। কিন্তু বৃহস্পতিবার এই আবেদন খারিজ করে দেয় পরিবেশ আদালত। এদিকে গত বছর থেকেই পরিবেশের কথা মাথায় রেখে রবীন্দ্র সরোবরে ছট পূজা বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছিল পরিবেশ আদালত। সেই সময় রবীন্দ্র সরবোরে পুজা আটকাতে রাজ্য প্রশাসন এবং পুলিশের ভূমিকায় খুশি হয়েছিলেন পরিবেশকর্মীরা। কিন্তু চলতি বছর কেএমডিএ-র পক্ষ থেকে রবীন্দ্র সরোবরে ছট পূজার আবেদন জানানো কার্যত ক্ষুব্ধ পরিবেশবিদরা।

যদিও এদিন এদিন পরিবেশ প্রেমীদেরও পাল্টা একহাত নেন ফিরহাদ। বলেন,“যখন রাজারহাটের জলাশয় ভর্তি পরে সেখানে প্রমোটিং করা হয়েছিল তখন কেন চুপ ছিলেন এই পরিবেশ প্রেমীরা? যাদের কোনও কাজ নেই, তারাই ঘরে বসে প্রেস কনফারেন্স করে এই ধরনের কথাবার্তা বলছেন।”

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here