জাতির বিবেক ঘুমালে, লাঠি একমাত্র সমাধান, একনায়কতন্ত্রই সমাধান, কৃষি আইন প্রত্যাহারে ক্ষুব্ধ কঙ্গনা রানাওয়াত

আমাদের ভারত, ১৯ নভেম্বর:
বলিউড হোক কিংবা দেশের রাজনীতি। বিভিন্ন বিষয়ে প্রায়শই নিজের মত প্রকাশ করতে দেখা যায় তাঁকে। তাঁর মত নিয়ে বিতর্কের ঝড়ও ওঠে। প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদীর কৃষি আইন প্রত্যাহারের ঘোষণার পরই ইনস্টা স্টোরিতে প্রতিক্রিয়া জানান কঙ্গনা রানাওয়াত। একটি টুইট তুলে ধরে ইনস্টা স্টরিতে এই সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে তাঁর মত, এটি অত্যন্ত লজ্জাজনক, অন্যয্য। দেশের মানুষ ঘুমালে বেতই একমাত্র সমাধান বলে তিনি মনে করেন।

কৃষি আইন প্রত্যাহারের ঘটনায় বলিউডের অভিনেত্রী
লিখেছেন, “দুঃখজনক, লজ্জাজনক, একেবারেই অনায্য। সংসদে নির্বাচিত সরকারের বদলে যদি রাস্তার লোকেরা আইন তৈরি করতে শুরু করে তাহলে ভারতও একটা জেহাদি দেশ। যারা এরকমটা চেয়ে ছিলেন তাদের অভিনন্দন।” এরপরে আরো একটি পোস্টে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর ছবির উপর কঙ্গনা লেখেন, “দেশের বিবেক যখন গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন তখন একমাত্র সমাধান হল লাঠি এবং একনায়কতন্ত্র হলো একমাত্র পথ।” তারপর তিনি “শুভ জন্মদিন ম্যাডাম প্রধানমন্ত্রী” বলেও উল্লেখ করেন।

গুরু নানকের জন্মদিনের সকালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিতর্কিত ৩ কৃষি আইন প্রত্যাহারের ঘোষণা করেন। আইন প্রত্যাহারের ঘোষণার পরই আন্দোলনরত কৃষকদের প্রধানমন্ত্রী অনুরোধ করেছেন এবার আপনারা বাড়ি ফিরে যান। প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস দিয়ে জানিয়েছেন সংসদের আগামী অধিবেশনেই তিনটি বিতর্কিত আইন প্রত্যাহারের আইনি প্রক্রিয়া শুরু হবে। তার সঙ্গে তিনি এও দাবি করেন, দেশের ছোটো ও গরিব কৃষকদের কথা ভেবেই তাঁরা এই আইন এনেছিলেন। তাঁদের উদ্দেশ্য সৎ ছিল। তাঁরা একটা অংশের কৃষকদের এই আইনের সুফলের কথা বোঝাতে পারেননি।

এই ঘোষণার পরই দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়। ১ বছর ধরে নয়া তিন কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে কৃষক বিক্ষোভ প্রভাবিত করেছে দেশের বৃহত্তম অংশকে। বাদ যায়নি সেলিব্রেটিরাও। বিভিন্ন সময় আইনের পক্ষে ও বিপক্ষে মন্তব্য করেছেন তাঁরা। শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পরেও সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন তারকারা। এর আগেও কৃষি আইন বাস্তবায়নের পক্ষে সওয়াল করেছিলেন কঙ্গনা।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here