ছাত্রীকে ধারাল অস্ত্রের কোপ, প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ স্থানীয়দের

আমাদের ভারত, সোনারপুর, ১১ জানুয়ারি: স্কুলে ভর্তি হতে গিয়ে গত মঙ্গলবার দুষ্কৃতিদের হাতে আক্রান্ত হয় সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রী। আক্রান্ত ছাত্রীর নাম অঙ্কিতা দেবনাথ(১২)। অভিযোগ,বাইকে করে এসে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মুখে আঘাত করা হয় ছাত্রীকে। মুখে, গলায়, নাকে গভীর ক্ষত নিয়ে বর্তমানে কলকাতার
এসএসকেএম হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে ছোট্ট অঙ্কিতা।

গত মঙ্গলবার সোনারপুর থানার হাসানপুরে সাতসকালে এই ঘটনার জেরে দোষীদের শাস্তি ও ঘটনার সঠিক বিচারের দাবিতে শনিবার সকালে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন ঐ ছাত্রীর পরিবার ও স্থানীয় মানুষজন। এ বিষয়ে শুক্রবার রাতে সোনারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করে ছাত্রীর বাবা রাজা দেবনাথ। তবে ঘটনার পর পুলিশ কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ার কারণেই এদিন রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখানো হয়।

শনিবার সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ২টো পর্যন্ত টানা ৪ ঘন্টা কালিকাপুর হাসপাতাল মোড়ে অবরোধে সামিল হয় এলাকার বাসিন্দারা। অবরোধে ছাত্রীর মা, বাবাও ছিলেন। রাস্তা বাঁশ দিয়ে আটকে মহিলারা রাস্তায় বসে বিক্ষোভ দেখান। এর জেরে এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়। খবর পেয়ে সোনারপুর থানার পুলিস ঘটনাস্থলে আসে। দোষীদের গ্রেপ্তারের আশ্বাস দেওয়ার পরই অবরোধ তুলে নেন বাসিন্দারা।

এদিকে পুলিশ তদন্তে নেমে ঘটনার সাথে জড়িত দুই যুবককে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে। খুনের চেষ্টার মামলা রুজু হয়েছে বলে জানিয়েছেন বারুইপুর পুলিশ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইন্দ্রজিত বসু। অতিরক্ত পুলিশ সুপার ইন্দ্রজিত বসু জানিয়েছেন, “প্রাথমিক তদন্তে অনুমান প্রেম ঘটিত কারণে এই ঘটনা ঘটেছে। দুই জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। মেয়েটির পরিস্তিতির দিকে আমরা নজর রাখছি। দোষীদের ছাড়া হবে না”।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে খবর, সোনারপুর থানার অন্তর্গত চম্পাহাটি হাসানপুরের বাসিন্দা রাজা দেবনাথের দুই মেয়ে এক ছেলে। ছোট মেয়ে অঙ্কিতা দেবনাথ কালিকাপুর বাসন্তী দেবি বালিকা বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। রাজা পেশায় সবজি বিক্রেতা। অঙ্কিতার মামা পিন্টু সরদার বলেন, “গত মঙ্গলবার সকালে স্কুলে ভর্তি হবার জন্য যাচ্ছিল অঙ্কিতা। পথে অঙ্কিতাকে কেউ বাইকে করে এসে আক্রমন করে। ধারালো অস্ত্র দিয়ে মুখে দিকে আঘাত করা হয়। গলায়, নাক, মুখে চোট নিয়ে রক্তাক্ত অবস্তায় সাইকেল নিয়ে পড়ে থাকে অঙ্কিতা। পাড়ার লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে গুরতর জখম অবস্তায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বেসরকারি হাসপাতালে পরে কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অবস্থা ভালো নয়। অজ্ঞান হয়েই আইসিসিইউ তেই আছে সে”।

অনুমান, কেউ প্রেমের প্রস্তাব দিয়েছিল অঙ্কিতাকে। ছোট মেয়ে পাত্তা দেয়নি তাতে। তাই আক্রোশবশত এই হামলা চালিয়ে খুন করার চেষ্টা করা হয়। এ বিষয়ে প্রথমে সোনারপুর থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে ও নেওয়া হয় নি। শুক্রবার রাতে অবশ্য অভিযোগ নেওয়া হয়। এই ঘটনায় এলাকার মানুষজন দোষীদের শাস্তি চাইছেন।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here