অ্যাম্বুল্যান্সের সমস্যা সামাধানে কলকাতা পুরসভায় বৈঠক, একগুচ্ছ নির্দেশিকা জারি স্বরাষ্ট্রসচিবের

রাজেন রায়, কলকাতা, ৪ আগস্ট: হোম আইসোলেশন থেকে হাসপাতাল যাওয়ার সময় হোক অথবা এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে যাওয়া, জরুরি প্রয়োজনে বেশিরভাগ সময়েই সাধারণ মানুষ অ্যাম্বুল্যান্স পাচ্ছেন না। আবার অ্যাম্বুল্যান্স কোনওমতে জোগাড় হলেও তাদের ইচ্ছামত দর হাঁকা নিয়ে রীতিমত আতঙ্কিত মানুষজন। তাই করোনা কালে ‘অ্যাম্বুল্যান্স’-এর রোগ সারাতে কলকাতা পুরসভা,স্বাস্থ্য ভবনের আধিকারিক ও আইএমএ-র প্রতিনিধিদের এক বিশেষ বৈঠক করলেন স্বরাষ্ট্রসচিব তথা কলকাতার নোডাল অফিসার আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কলকাতা পুরসভার প্রশাসনিক মন্ডলীর সদস্য বিশিষ্ট চিকিৎসক অভিজিৎ চৌধুরী এবং কলকাতা পুলিশের স্পেশাল কমিশনার জাভেদ শামিম। সমস্যায় না পড়ে অ্যাম্বুলেন্স কি ভাবে পাওয়া সম্ভব, সেই নিয়ে এদিনের বৈঠকে আলোচনা হয়। ঠিক হয়েছে, স্বাস্থ্য ভবন ও কলকাতা পুরসভার যোগাযোগ করে সুনিয়ন্ত্রিত পথে গেলে নিশ্চিত ভাবে অ্যাম্বুল্যান্স পাবেন সাধারণ মানুষ।

স্বরাষ্ট্র সচিব এদিন বৈঠকের পর বেশ কয়েকটি পদক্ষেপের কথা জানান। এই করোনা আবহে যাতে অ্যাম্বুলেন্স যেখানে সেখানে ঘুরে না বেড়ায়, তার জন্য গতিপথ নজরে রাখতে প্রত্যেক অ্যাম্বুল্যান্সে জিপিএস সিস্টেম লাগাতে হবে। স্বাস্থ্য দফতরের নির্দিষ্ট নম্বর
(১৮০০৩১৩৪৪৪২২২) এবং কলকাতা পুরসভার কন্ট্রোলরুমের (০৩৩-২২৮৬ ১২১২/১৩১৩/১৪১৪) নম্বরে যোগাযোগ করে সুনিয়ন্ত্রিত পথে গেলে অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা সঠিক পাওয়া যাবে। ইতিমধ্যেই স্বাস্থ্য ভবনের ১১০টি অ্যাম্বুলেন্স এবং কলকাতা পুরসভার ৩০টিরও বেশী অ্যাম্বুলেন্স কাজ করছে। অ্যাম্বুল্যান্সের সংখ্যা
আরও বাড়ানো হবে বলে আশ্বস্ত করলেন স্বরাষ্ট্র সচিব।
তিনি আরও বলেন, ‘প্রয়োজন বুঝে ঠান্ডা মাথায় অ্যাম্বুলেন্সের খোঁজ করুন। অযথা চঞ্চলতা না করলে তাহলে প্রতারিত হবেন না।’

এছাড়া নন কোভিড পেশেন্ট কোভিড পজিটিভ হলে সংশ্লিষ্ট নার্সিংহোম বা হাসপাতালকেই স্বাস্থ্য ভবন মারফত কোভিড হাসপাতালে সিট বুকিং ও অ্যাম্বুলেন্স এর জন্য যোগাযোগ করতে হবে বলে জানান স্বরাষ্ট্রসচিব।
এদিন কলকাতা পুরসভায় যে সমস্ত ওয়ার্ডে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে সেই এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক ও চিকিৎসা কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেন বিশিষ্ট চিকিৎসক অভিজিৎ চৌধুরী। কোভিড সংক্রান্ত গ্লোবাল অ্যাডভাইজারি বোর্ডের সদস্য চিকিৎসক অভিজিৎ চৌধুরী কলকাতা পুরসভার সেই স্বাস্থ্য কর্মীদের সামনে বিভিন্ন উপদেশ দেন। কিভাবে আগামী দিনে করোনা ভাইরাসের মোকাবিলা করতে হবে, তার বিষয়েও রূপরেখা তৈরি করে দেন তিনি।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here