পুলিশি নিয়মের অপব্যবহার, বনগাঁয় দুর্গোৎসবে জনবহুল রাস্তায় বাইক বাহিনীর দাপটে প্রাণ গেল এক জনের

সুশান্ত ঘোষ, আমাদের ভারত, উত্তর ২৪ পরগণা, ২ অক্টোবর: সারা রাজ্য মেতে উঠেছে দুর্গা পুজোর উৎসবে। কলকাতার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে উত্তর ২৪ পরগনার বনগাঁ শহরেও আয়োজন করা হয়েছে দুর্গাপুজোর। ভারত- বাংলাদেশ সীমান্ত হল বনগাঁ শহর। আর সেই কারণে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে চলছে
দুর্গোৎসব। তার মধ্যেই এক দল বাইক বাহিনী পুলিশের সামনে জনবহুল রাস্তায় বাইক নিয়ে মরণকূপের খেলা দেখাচ্ছেন। ইতিমধ্যেই বাইক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে এক যুবকের, আহত এক। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে বনগাঁ শহরের চারপাশে আঁটোসাঁটো নিরাপত্তা রাখা হয়েছে।

একদিকে বনগাঁর চাকদা রোড, যশোর রোড। আর অন্য দিকে বাগদা রোডে বাঁশের ব্যারিকেট করে প্রচুর পুলিশ রাখা হয়েছে। নির্দেশিকা জারি করা হয়েছিল পুজোর পাঁচ দিন বনগাঁ শহরে নো-এন্টি করা হবে। সেই মতো পুজোর পাঁচ দিন বিকেলের পর থেকে কোনো রকম যানবাহন বনগাঁ শহরে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। এমন কী বাইক নিয়েও চলাচল করা যাবে না। যদিও বনগাঁ থানার পুলিশের পক্ষ থেকে জরুরি বিভাগের জন্য গেট পাশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এই গেটপাস বা কারপাস কাদের দেওয়া হয়েছে পুলিশ নিজেও জানেন না। কারপাসের অপব্যবহার করে এক দল বাইক বাহিনী দাপিয়ে বেড়াচ্ছে জন বহুল এলাকায়। বেপরোয়া ভাবে বাইক ছুটছে সাধারণ মানুষের গায়ের উপর দিয়ে।

সাধারণ মানুষের বক্তব্য, পুলিশের সামনে যে ভাবে ভিড়ের মধ্যে বেপরোয়া বাইক গুলো ছুটছে যে কোনো মুহূর্তে দুর্ঘটনার কবলে পড়তে পারে সাধারণ মানুষ। এতো পুলিশি নিরাপত্তা থাকতেও হেলমেট ছাড়া কি করে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এই বাইক বাহিনী? এক একটি বাইকে তিনজন করে যাচ্ছে। পুলিশ এখনও যদি এই বাইকের দাপট না থামায়, বড়সড় দুর্ঘটনার কবলে পরতে হবে প্রশাসনকে।

যদিও বনগাঁর পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, বিষয়টা আমাদের নজরে এসেছে। আজ থেকে ধরপাকড় চলবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here