“নতুন অধ্যায় শুরু করলাম ভারত–মার্কিন সম্পর্কের,” মোদী–বাইডেন বৈঠকের পর মন্তব্য মার্কিন রাষ্ট্রপতির

আমাদের ভারত,২৪ সেপ্টেম্বর:
হোয়াইট হাউসে সম্পন্ন হল বহু প্রতীক্ষিত মোদী বাইডেন বৈঠক। আমেরিকার রাষ্ট্রপতি হিসেবে নির্বাচিত হবার পর এই প্রথম জো বাইডেন ও নরেন্দ্র মোদীরর সাক্ষাৎ হলো। বৈঠক ঘিরে উত্তেজনা ছিল তুঙ্গে। ভারতীয়দের পাশাপাশি মার্কিন মুলুকে বসবাসকারী এন আর আইদের মধ্যেও উৎসাহ ছিল চোখে পড়ার মতো। আফগান পরিস্থিতির উদ্বেগের মধ্যেই করোনা মহামারী, বাণিজ্য, জলবায়ু পরিবর্তন‌সহএকাধিক বিষয়ে ঘন্টাখানেক আলোচনা হয় দুই রাষ্ট্রপ্রধানের মধ্যে।

মোদী প্রবেশ করতেই হোয়াইট হাউসের বাইরে জড়ো হন মার্কিন মুলুকে বসবাস কারী ভারতীয় বংশোদ্ভূত বহু মানুষ। দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের ছবি নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে দেখা গিয়েছে তাদের। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন বাইডেন ও মোদী। বাইডেন বলেন, নতুন অধ্যায় শুরু করলাম। ভারত ও মার্কিন বাণিজ্য সম্পর্কে বিশেষ জোর দেওয়া হবে আগামী দিনে। মোদী বলেন, এমন অনেক জিনিস আছে যা ভারতের কাছে রয়েছে, আগামী দিনে আমেরিকা কাজে লাগাবে। আবার আমেরিকার বহু জিনিস আছে, ভারতে যা কাজে লাগবে। সেই কারণেই বাণিজ্য বিশেষ গুরুত্ব নেবে দু’দেশের মধ্যে।

এই দিনের বৈঠকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাঁর বক্তব্যে, গান্ধী জয়ন্তী প্রসঙ্গ তোলেন। এক্ষেত্রে নরেন্দ্র মোদী বলেন, প্রেসিডেন্ট বাইডেন গান্ধীজীর প্রসঙ্গ উত্থাপন করেছেন। গান্ধীজী সর্বদা একে অপরের উপর ভরসা করার কথা বলতেন। ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ভরসার সম্পর্ক বজায় থাকবে ভবিষ্যতে। কূটনৈতিক মহলের একাংশের মতে ভারত–আমেরিকার বন্ধুত্বপূর্ণ এই সম্পর্ক ঘুরপথে হলেও তালিবানদের বিশেষ বার্তা দেওয়ার একটি কৌশল।

তবে শুধু গুরুত্বপূর্ণ আলোচনাতেই থেমে থাকেননি দুই রাষ্ট্রপ্রধান। তাঁরা মেতে ওঠেন হাসি-ঠাট্টা তেও। ভারতবর্ষে মুম্বাইতে তাঁর আত্মীয় থাকেন বলে বলতে শোনা যায় বাইডেনকে। মোদীকে তিনি বলেন, ভারতে আরো পাঁচজন বাইডেন রয়েছেন।

এদিকে ওয়াশিংটনে পৌঁছাতেই মার্কিন মুলুকে বসবাসকারী ভারতীয়রা মোদীকে ঘিরে উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠেন। তাঁকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানাতে বিমানবন্দরে পৌঁছেছিলেন প্রবাসীরা। তেরঙ্গা ফুলের মালা হাতে মোদীর জন্য অপেক্ষা করেছেন কয়েকশো ভারতীয়। আপ্লুত মোদীও তাদের সাথে সৌজন্য বিনিময় করেন। টুইট করে উষ্ণ অভ্যর্থনার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন মোদী। তিনি বলেছেন “প্রবাসীরা আমাদের শক্তি। সারাবিশ্বে ভারতীয় ছড়িয়ে আছে যা অত্যন্ত গর্বের বিষয়।”

আজ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের সঙ্গেও বৈঠক করেছেন মোদী। জানা গেছে, আন্তর্জাতিক উন্নয়ন ও আফগানিস্তান প্রসঙ্গে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা হয়েছে উভয়ের মধ্যে। পাশাপাশি ইন্দো-প্যাসিফিক রিজিয়ন গড়ার লক্ষ্য পূরণ নিয়েও আলোচনা হয়েছে তাদের মধ্যে।

বাইডেন বলেন, নতুন অধ্যায় শুরু করলাম, ভারত-আমেরিকা বিশ্বের সবচেয়ে বড় দুই গণতন্ত্রের বন্ধুত্ব, এখন প্রধান চ্যালেঞ্জ করোনা মহামারী। যতদিন যাবে বন্ধুত্ব আরো শক্তিশালী হবে

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here