কি ভাবে ভাবতে হয়, অনুসন্ধান, আলোচনা ও বিশ্লেষণ নির্ভর শিক্ষায় জোর নয়া শিক্ষানীতিতে: মোদী

আমাদের ভারত, ৭ আগস্ট: গত ২৯ জুলাই নতুন শিক্ষানীতির অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। সেই শিক্ষানীতি কেমন ও কেন বদল আনা হল জাতীয় শিক্ষানীতিতে এই বিষয়ে আজ বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। শুক্রবার ইউজিসি আয়োজিত কনক্লেভ অন ট্রানসফর্মেশনাল রিফর্ম ইন হায়ার এডুকেশন আন্ডার ন্যাশনাল এডুকেশন পলিসি শির্ষখ ভার্চুয়াল সভায় বক্তব্য রাখেন মোদী। তার কথায় নতুন শিক্ষানীতিতে অনুসন্ধান আলোচনা ও বিশ্লেষণ নির্ভর শিক্ষার উপর জোর দেওয়া হয়েছে। নতুন শিক্ষানীতিতে ভারতীয় ছাত্রদের গ্লোবাল সিটিজেন হয়ে উঠতে সাহায্য করবে বলেও দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছেন বহু আলোচনার পরে এই শিক্ষানীতি গৃহীত হয়েছে।নয়া শিক্ষানীতি কোন ভাবেই পক্ষপাত দুষ্ট নয় বলেও দাবি করেছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমান শিক্ষানীতি বহু আলোচনার পর গৃহীত হয়েছে। নয়া জাতীয় শিক্ষানীতি একুশ শতকের ভারতবর্ষের চাহিদাকে মাথায় রেখে উন্নয়নের নতুন শিখর ছোঁয়ার লক্ষ্যেই তৈরি হয়েছে। এটি কোনোভাবেই পক্ষপাতদুষ্ট নয়। তিনি বলেন, বিশ্ব শিক্ষানীতি থেকে অনুপ্রাণিত হয়েছে এই নয়া শিক্ষানীতি। বিশ্ব পাল্টাচ্ছে পাল্টাচ্ছে সময় তার সাথে পাল্লা দিয়ে শিক্ষানীতিতে বদল আনা খুব দরকার ছিল। মোদীর কথায়,দেশের যুব সমাজ ও তাদের অগ্রগতির কথা মাথায় রেখেই নতুন শিক্ষানীতি আনা হচ্ছে।

এরপর তিনি ৩ ভাষা নীতি এবং মাতৃভাষায় পড়াশোনা প্রসঙ্গে বলেন, মাতৃভাষা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সেই কারণেই মাতৃভাষাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। একাধিক সমীক্ষায় দেখা গেছে ছোটোরা মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষা লাভের স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। নতুন শিক্ষানীতিতে এই বিষয়টির ওপর জোর দেওয়া হয়েছে।

মোদী বলেন, প্রত্যেক দেশ তার শিক্ষানীতিতে জাতীয় মূল্যবোধের সঙ্গে সম্পৃক্ত করেই গড়ে তোলে। সেই মতই শিক্ষানীতির সংস্কার করে। তাই ভারতেও একই পদক্ষেপ করা হয়েছে। তিনি বলেন, নতুন শিক্ষানীতিতে অনুসন্ধান, আলোচনা ও বিশ্লেষণ নির্ভর শিক্ষার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন নতুন শিক্ষানীতিতে হাউ টু থিংকের ওপর অর্থাৎ কি ভাবে ভাববে তার উপর জোর দেওয়া হয়েছে।

বাচ্চারা যাতে সহজে শিখতে পারে সে জন্য নতুন নীতি নির্ধারণ করা হয়েছে। নতুন প্রজন্মকে নতুন করে গড়ে তুলবে এই নয়া শিক্ষানীতি। দেশ গঠনে ভূমিকা নেবে শিক্ষানীতি।এরপর ভারতীয় ছাত্র চাকরি খুঁজবেন না তারা চাকরি দেবেন। নয়া শিক্ষানীতি ভারতীয়দের গ্লোবাল সিটিজেন হিসেবে গড়ে তুলবে।

একইসঙ্গে তিনি বলেন নতুন শিক্ষানীতি পাঠ্যবই নির্ভর হবে না। তাতে বইয়ের ভার কমবে। শিক্ষকদের ট্রেনিং এর উপর জোর দেওয়া হয়েছে নয়া শিক্ষানীতিতে। মোদী বলেন শিক্ষকরাই পড়ুয়াদের স্বপ্ন দেখান। শিক্ষকদের ট্রেনিং ঠিকঠাক হলে তবে সমাজ এগিয়ে যাবে। তিনি বলেন এই শিক্ষানীতি কোন সার্কুলার নয়। একে সফল করতে সকলের ইচ্ছা শক্তির প্রয়োজন। আর তার জন্য প্রত্যেককে এগিয়ে আসতে হবে। সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে পারে এই নতুন শিক্ষানীতি। তাই একে সফল করার জন্য একসাথে কাজ করতে হবে সবাইকে।

মোদী বলেন নতুন এই শিক্ষানীতি শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তি ও প্রতিভার মেলবন্ধন ঘটবে। দৃষ্টিভঙ্গি বদলাবে সমাজের। উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি নিয়ে দুটি মত রয়েছে। একদল উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির সরকারের নিয়ন্ত্রণের উপর জোর দেয় অপরটি স্বশাসনের পক্ষে। প্রকৃত শিক্ষার পথ এই দুটি মতের মাঝখান দিয়ে গিয়েছে বলেও মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি নয়া শিক্ষানীতিতে বাড়তি ক্ষমতা পাবে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here