ভাগবত কথা, নতুন বিক্রম সম্বতের শুরুতে করোনা রোধে মোহনবাণী সরসঙ্ঘচালকের

চিন্ময় ভট্টাচার্য

আমাদের ভারত, ২৫ মার্চ: হিন্দু নববর্ষের সূচনায় বুধবার, যুগাব্দ ৫,১২২-এর প্রতিপদে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে স্বয়ংসেবকদের রণকৌশল স্থির করে দিলেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের সরসঙ্ঘচালক মোহন ভাগবত। আপদকালীন পরিস্থিতিতে, মাঠে গিয়ে শাখার অনুশীলন নয়। বদলে, লকডাউনের নির্দেশ মেনে ঘরের মধ্যেই শাখা তৈরির জন্য এদিন তিনি স্বয়ংসেবকদের নির্দেশ দেন।

দেশজুড়ে লকডাউন চলছে। এই পরিস্থিতিতে শাখার মূল কাজ- একত্রিত হওয়া এবং প্রার্থনা কীভাবে চলবে? এই প্রশ্নে এদিন স্বয়ংসেবকদের ঘরের মধ্যে শুধু পরিবারের হাতেগোণা সদস্যদের নিয়েই শাখার নিয়ম পালনের জন্য বলেছেন ভাগবত। প্রতিবছর হিন্দু নববর্ষের প্রথম দিনটিকে সঙ্ঘের প্রতিষ্ঠাতার জন্মদিন উপলক্ষে ‘সঙ্কল্প দিবস’ হিসেবে পালন করে সঙ্ঘ। সেকথা মাথায় রেখে, এবার এই ‘সঙ্কল্প দিবস’-এ করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সঙ্কল্প গ্রহণের জন্য এদিন সরসঙ্ঘচালক স্বয়ংসেবকদের কাছে আহবান জানান।

স্বয়ংসেবকদের বার্তায় ভাগবত জানান, সঙ্ঘের অনুশাসন মেনেই ব্যক্তিনির্মাণ, ব্যক্তির সংস্কার, সমাজ নির্মাণের কাজ চলবে। এই সব কাজে সঙ্ঘ বরাবরই বৃহত্তর স্বার্থে ত্যাগের পক্ষে। এই ত্যাগের পরিচয় হিসেবেই স্বয়ংসেবকদের কাছে দেশের স্বার্থে লকডাউনের নির্দেশ মানার জন্য এদিন তিনি আহ্বান জানান।

এই প্রসঙ্গে এদিন ভাষণে ‘সঙ্ঘনির্মাতা’ বা ‘আদি সরসঙ্ঘচালক’ ডাক্তারজি বা কেশব বলিরাম হেডগেওয়ারের প্রসঙ্গও বারবার টেনে আনেন ভাগবত। হেডগেওয়ারের মতাদর্শ মেনে, বর্তমান আপদকালীন পরিস্থিতিতে ভাবনা, বিশ্বাস এবং আচারে অনড় থেকে সঙ্ঘের কাজকর্ম চালাতে তিনি স্বয়ংসেবকদের পরামর্শ দিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here