জ্বর, কাশি বা কনটেনমেন্ট জোনে থাকলে অফিসে না আসার নয়া নির্দেশ নবান্নের

রাজেন রায়, কলকাতা, ৯ জুন: সোমবার থেকে ৭০ শতাংশ কর্মী অফিসে হাজিরার কথা বললেও ফের কিছুটা নির্দেশ সংশোধিত করল নবান্ন। যদিও অনেকেই বলছেন, এই অংশটুকু আগেই জুড়ে দেওয়া উচিত ছিল। নতুন নির্দেশে বলা হয়েছে, সব কর্মীকে সপ্তাহে অন্তত তিন দিন করে হাজির থাকতে হবে। তবে জ্বর, কাশির মতো করোনা সংক্রমণের কোনও রকম উপসর্গ থাকলে কর্মীদের কাজে যোগ দিতে হবে না। কনটেনমেন্ট জোনে যে সব কর্মীরা থাকেন তাদের আপাতত অফিসে আসতে হবে না, তাঁরা বাড়ি থেকেই কাজ করবেন। তাতে অফিসে মোট ৭০ শতাংশ কর্মীর কম হলেও চলবে। একমাত্র জরুরি ক্ষেত্রে একান্তই কোনও কর্মীকে আনতে হলে সেই ব্যাপারে বিস্তারিত জানিয়ে প্রশাসনকে অনুমতি নিতে হবে।

এদিন রাজ্য সরকারের তরফে নির্দেশে বলা হয়েছে, করোনা সংক্রমণের উপসর্গ নেই এমন অফিসার, কর্মীরাই শুধু এক দিন অন্তর অফিসে আসবেন। কোনও কর্মীর যদি অল্প জ্বর, সর্দি, কাশি ইত্যাদি দেখা দেয়, তবে তাঁকে অফিসে আসতে হবে না। যে সব কর্মীরা কনেটনমেন্ট এ বা বি জোন‌ে থাকেন, তাঁদের এখন অফিসে আসতে হবে না। যতদিন না ওই এলাকাকে ‘সি’ ক্যাটাগরিতে ফেলা হচ্ছে ততদিন বাড়ি থেকে কাজ করা যাবে। যে সব জায়গায় অফিসার, কর্মীরা একই জায়গায় বসে কাজ করেন, সেখানে ১০ জনের বেশি একসঙ্গে থাকা যাবে না। বসার ব্যবস্থা এমন করতে হবে যাতে দু’জন কর্মীর মধ্যে কমপক্ষে দু’মিটারের দূরত্ব থাকে। সপ্তাহ অনুযায়ী কর্মতালিকা বানাতে হবে।
যে সব অফিসারের পদ ডেপুটি সেক্রেটারির ওপরে এবং ‌অফিসে আলাদা কেবিন, কিউবিক্যাল বা বসার ব্যবস্থা আছে তাদের প্রতিদিন অফিসে আসতে হবে। সাধারণ ভাবে নির্দিষ্ট সময় থেকে কাজ করতে হবে। বাকিদের ই-অফিস ব্যবস্থার মাধ্যমে বাড়ি থেকেই কাজ করতে হবে।

লিফটে একসঙ্গে তিনজনের বেশি ওঠানামা করা যাবে না।
অফিসে সব সময়ে মাস্ক পরে থাকা বাধ্যতামূলক। বারবার হাত ধুতে হবে এবং স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে। সরকারি অফিসে বাইরে থেকে কাজের জন্য আসা ভিজিটরদের বসার জায়গাতেও দূরত্ব রক্ষা করতে হবে। অফিসার ও কর্মীদের ব্যবহার করা সামগ্রী যেমন কিবোর্ড, মাউস, ফোন, এসি রিমোট ইত্যাদি নিজেদেরই যতটা সম্ভব ১৫ দিন অন্তর অফিস স্যানিটাইজ করতে হবে। মুখোমুখি বসে কো‌নও মিটিং বা আলোচনা করা যাবে না। ফোন, ইন্টারকম, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠক সারতে হবে। সব মিলিয়ে এক কথায় বলতে গেলে অফিস করার পদ্ধতি সম্পূর্ণ বদলে ফেলল রাজ্য সরকারই।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here