করোনা মোকাবিলায় লক ডাউন পর্ব শেষ হলে স্কুলের ক্লাস রুমে চালু হবে নতুন নিয়ম

আমাদের ভারত, ২ মে:করোনা ত্রাসে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। সারা পৃথিবী জুড়ে চলছে লকডাউন। থমকে গেছে সবকিছু। সম্ভবত এত দীর্ঘদিন মানুষ এর আগে কোনদিন ঘরবন্দি থাকেনি। কিন্তু করোনা পরবর্তী সময় মানুষের জীবনযাত্রায় বিরাট পরিবর্তন আসছে বলে আগেই অবগত করেছে বিশেষজ্ঞ মহল। তার অন্যতম হল সোশ্যাল ডিসটেন্সিং বজায় রাখতে হবে। আর সেটা মানতে হবে স্কুলেও। সেই কারণেই লক ডাউনের পরবর্তী সময়ে স্কুল কলেজ খুললে ছাত্র শিক্ষক শিক্ষাকর্মীদের সুরক্ষার দিকে নজর দিতে নতুন বেশ কিছু নিয়ম লাগু করা হবে বলে জানিয়েছে মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক।

মন্ত্রকের স্কুল এডুকেশন এন্ড লিটারেসি দপ্তর লক ডাউনের পর যখন স্কুল খুলবে তার জন্য যে নতুন নিয়ম হবে তা তৈরি করা শুরু করেছে। মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী রমেশ পখরিয়াল বলছেন, স্কুল কলেজ বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে সোশ্যাল ডিসটেন্স চালিয়ে যেতে হবে। পড়ুয়াদের সুরক্ষার্থেই এই নিয়ম মানতে হবে সকলকে। এতদিন ক্লাস রুমে যেভাবে পড়ুয়ারা বসত। তার পরিবর্তন আসবে। সোশ্যাল ডিস্টেন্স বজায় রেখে কতটা দূরত্বে কিভাবে ক্লাসে বসার ব্যবস্থা হবে তা নিয়ে আলোচনা চলছে বিস্তর।

সাধারণত একটি ক্লাসরুমে ৩০ থেকে ৪০ জন পড়ুয়া বসে ক্লাস করত বেশিরভাগ স্কুলে। একটি বেঞ্চে দুজন করে পড়ুয়া বসে। কোথাও কোথাও বেঞ্চের দৈর্ঘ্য লম্বা হলে বেশি সংখ্যক পড়ুয়াও বসে। কিন্তু লক ডাউনের পর স্কুল খোলার পর সোশ্যাল ডিস্ট্যান্স রাখতে স্কুলের ক্লাসে কত জন পড়ুয়া একসাথে বসবে সে দিকে নজর দেওয়া দরকার। আর সেই কারণেই প্রশ্ন উঠেছে পর্যাপ্ত পরিমাণে জায়গার অভাব তৈরি হবে। সোশ্যাল ডিসটেন্স বজায় রেখে লকডাউনের আগের মত কি আদৌ ক্লাস চলবে? প্রাইমারি এবং সেকেন্ডারি বিভাগের ক্লাস হয় সকালে বা দুপুরে। একসঙ্গে এতগুলো ছেলেমেয়ের সোশ্যাল ডিসটেন্স বজায় রেখে ক্লাস কিভাবে হবে তা নিয়েও আলোচনা চলছে। পড়ুয়া শিক্ষক শিক্ষা কর্মী নিরাপত্তা মাথায় রেখে দূরত্বের দিকে নজর দেওয়া হচ্ছে। তাহলে কি শিফটে ক্লাস চালু করা হতে পারে? সেই প্রশ্নও ঘুরছে ওয়াকিবহাল মহলে।

নতুন নিয়মে ক্লাসরুম ছাড়াও,ওয়াশরুম, স্কুল বাস, ক্যাফেটেরিয়া, সকালের প্রেয়ার ইত্যাদি ভিড় হবার মত জায়গা গুলো কিভাবে সামাল দেওয়া হবে তা নিয়েও আলোচনা চলছে। তার জন্য নতুন বিধি চালু হতে পারে। নির্দিষ্ট সময় অন্তর পুরো স্কুল বিল্ডিং স্যানিটাইজ করার কথা বলা হতে পারে। মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক থাকবে।

নতুন নিয়মাবলী রাজ্যগুলির সঙ্গেও ভাগ করে নেওয়া হবে। যাতে তারাও স্কুল খোলার সঙ্গে সঙ্গেই নিরাপত্তার দিকটি নিশ্চিত করতে পারে।

কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে ইতিমধ্যেই ইউজিসি জানিয়েছে ভর্তি পরীক্ষা প্রক্রিয়া চলবে আগস্ট মাসে। নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হবে সেপ্টেম্বরে। অনলাইন পড়াশোনার ব্যাপারে জোর দিয়েছে ইউজিসি। গত ১৬ মার্চ থেকে দেশের সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রয়েছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here