পারিবারিক বিবাদের কারণেই নির্যাতিতাকে তার মা ও ভাই খুন করেছে, দাবি বিজেপির প্রাক্তন বিধায়কের

আমাদের ভারত,২ অক্টোবর: হাথরস ঘটনায় এবার নতুন মোড়। বিজেপি প্রাক্তন বিধায়ক রাজবীর সিং পাহেলওয়ান দাবি করেছেন ওই নির্যাতিতার মা আর ভাই মিলে তাকে খুন করেছে। পারিবারিক বিবাদের কারণেই এই খুন হয়েছে। তার দাবি ধৃত চার যুবক সম্পূর্ণ নির্দোষ। তাদের ষড়যন্ত্র করে এই মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে।

১৪ সেপ্টেম্বর নির্যাতিতাকে গলায় ফাঁস লাগিয়ে খুনের চেষ্টা করে। ১৪দিন হাসপাতালে লড়াই চালানোর পর মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে নির্যাতিতা। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট বলছে ঘাড়, শিরদাঁড়া, কোমর সহ দেহের একাধিক জায়গায় গভীর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্টে কোথাও ধর্ষণের উল্লেখ নেই। উত্তরপ্রদেশের পুলিশ ঘোষণা করেছে নির্যাতিতার ঘর্ষণ হয়নি। এরমধ্যে বিজেপি বিধায়কের চাঞ্চল্যকর এই দাবি এই ঘটনার নতুন মোড় দিতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

নির্যাতিতার পরিবারের অভিযোগ পুলিশ তাদের নজর বন্দি করে রেখেছে। পুলিশ গোটা গ্রাম ঘিরে রেখেছে। সংবাদমাধ্যমকেও গ্রামের ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। তারমধ্যে ভিডিও ভাইরাল হয়েছে যেখানে দেখা গেছে জেলাশাসক নির্যাতিতার পরিবারের লোকজনকে বয়ান বদলের জন্য চাপ দিচ্ছেন। অন্যদিকে এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ধৃত যুবক রামুর বাবা রাকেশ জানিয়েছেন তার ছেলেকে ফাঁসানো হয়েছে। বিজেপি সাংসদ রাজবীর সিং দিলের ও তার মেয়ে মঞ্জু তার ছেলেকে চক্রান্ত করে এই মামলায় ফাঁসিয়েছে। রাজবীর সিং দিলের নির্যাতিতার মতোই বাল্মিকী সম্প্রদায়ের বলেই এমন কাজ করেছেন বলে দাবি করেছেন তিনি।

বিজেপি প্রাক্তন বিধায়ক রাজবীর সিং পাহেলওয়ান ঠাকুর সম্প্রদায়ের। তিনি দাবি করেছেন মা ও ভাই মিলেই কোন পারিবারিক বিবাদের জেরে নির্যাতিতাকে খুন করেছে। তারপর গ্রামের ওই ৪ যুবককে এই মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তিনি দাবি করেছেন বিজেপি সাংসদ রাজবীর সিং দিলের ও তার মেয়ে চক্রান্ত করে গ্রামের ওই ৪ যুবককে মামলায় ফাঁসিয়ে দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন খুব তাড়াতাড়ি সত্যিটা সামনে আসবে যখন হাথরাসের জনতা সংসদকে শিক্ষা দেবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here