একই দিনে দিঘা, ভগবানপুর, হলদিয়াতে আগুন, দিঘায় পর্যটকরা নামলেন পাইপ বেয়ে

জে মাহাতো, মেদিনীপুর, ২৭ জানুয়ারি:
একই দিনে পরপর তিনটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায়। সৈকত শহর দিঘার ভিক্টোরিয়া হোটেলে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা নাগাদ ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে এদিন ভোরে ভগবানপুরে এবং সকালে হলদিয়ায় আগুন লেগে ভস্মীভূত হয়েছে বেশ কয়েকটি দোকান। বেশ কয়েক লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি স্থানীয়দের।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা নাগাদ নিউ দিঘার ভিক্টোরিয়া হোটেলে ভয়াবহ আগুন লেগে যায়। প্রথমে হোটেলের সিড়ির নিচ থেকে আগুন বের হতে দেখেন পর্যটক এবং হোটেল কর্মীরা। মুহূর্তের মধ্যে আগুন ছড়িয়ে পড়ে হোটেলের প্রথম এবং দ্বিতীয় তলে। পর্যটনকেন্দ্র দিঘা বন্ধ থাকায় সে পরিমাণ পর্যটক না থাকলেও ১৫- ২০জন পর্যটক অগ্নিকাণ্ডের সময় ওই হোটেলে ছিল। আচমকা আগুন লেগে যাওয়ায় নিজেদের প্রাণ বাঁচাতে হুড়োহুড়ি লেগে যায়। জানালার কাচ ভেঙ্গে দ্বিতীয় তলা থেকে কোনওরকমে পাইপ বেয়ে নিচে নেমে আসেন পর্যটকরা। ঘটনাস্থলে রামনগর থেকে ছুটে আসে দমকলের দুটি ইঞ্জিন। এরই মাঝে একজন পর্যটক নামতে গিয়ে পড়ে জখম হন। একপ্রকার ভয়াবহভাবে আগুন থেকে বাঁচেন পর্যটকরা।

প্রত্যক্ষদর্শী তথা হোটেল কর্মী শ্যামাশঙ্কর মিত্র জানান, “দমকল আসতে একটু দেরি করেছিল। আগুন আরো আগে আয়ত্বে আনা যেত। অনেকে বলছে শর্ট সার্কিটের জন্য আগুন। আবার জানা যাচ্ছে, হোটেলে এয়ার প্রুফ করার জন্য মিস্ত্রি কাজ করছিল। তা থেকেও আগুন হতে পারে।” এরই মাঝে স্থানীয়দের মত, হোটেলের অধিকাংশ রুম প্লাইউড দিয়ে তৈরি। যার জেরে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ঠিকঠাক না থাকায় এই ঘটনা। রামনগর দমকল বিভাগের ওসি জানান, “প্রথম এবং দ্বিতীয় তলায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। দুটো ইঞ্জিনের মোট চারটি ব্রাঞ্চ দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। দমকল আধিকারিক দিলীপ গুছাইত জানান, অগ্নিকাণ্ডের কারণ এখনো সঠিকভাবে জানা যাচ্ছে না। তদন্ত চলছে।

অন্যদিকে, হলদিয়ার দুর্গাচক থানার অন্তর্গত বালারমোড়ে বৃহস্পতিবার সকাল নাগাদ একটি ভূষিমালের দোকানে হঠাৎ আগুন লেগে যায়।  স্থানীয় মানুষজন ছুটে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। পরে হলদিয়া দমকল স্টেশন থেকে একটি ইঞ্জিন আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। 

এদিকে, ভগবানপুর থানার নিমকবাড় এলাকায় ভোরের দিকে আগুন লেগে ফার্নিচার, সাইকেল, সেলুন এবং একটি বিড়ির দোকান সম্পূর্ণ ভষ্মিভূত হয়েছে। এগরা থেকে দমকলের একটি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। 

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here