এক দেশ এক রেশন কার্ডের পর কৃষক স্বার্থে এক দেশ এক বাজার নীতি, বড় প্যাকেজ সহ ৩ বড় আইনী সংস্কার ঘোষণা অর্থমন্ত্রীর

আমাদের ভারত, ১৫ মে : শ্রমিকদের সুবিধার্থে এক দেশ এক রেশন কার্ড এর পর কৃষকদের সুবিধার্থে এবার কেন্দ্র সরকার ঘোষণা করলো এক দেশ এক বাজার নীতির। কৃষকদের জন্য বড়োসড়ো আর্থিক প্যাকেজ সহ তিনটি বৃহৎ সংস্কারের পথে হাঁটল মোদী সরকার। উৎপাদিত ফসলের সঠিক দাম যাতে কৃষকরা পান সেই লক্ষ্যকে মাথায় রেখেই এই সংস্কারগুলো করতে চলেছে কেন্দ্র সরকার।

তার মধ্যে অন্যতম অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আইনে বদল আনার ভাবনা রয়েছে সরকারের। একইসঙ্গে কৃষিজ পণ্য পরিবহন আইনেও বদলানোর কথা ঘোষণা করেছেন অর্থমন্ত্রী। এর ফলে উৎপাদিত ফসল গোটা দেশে বিক্রি করতে পারবেন কৃষকরা। একইসঙ্গে ফসল চাষের আগেই কৃষককে ন্যূনতম দাম ফেরত দেওয়ার নিশ্চয়তা যাতে দেওয়া যায় সেই পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন নির্মলা সীতারমন।

কৃষি ক্ষেত্রের জন্য ১ লক্ষ কোটি টাকার বিশেষ তহবিল ঘোষণা করেছেন অর্থমন্ত্রী। এই তহবিলের অর্থ খরচ হবে কৃষিপণ্য সংরক্ষণের পরিকাঠামো এবং পণ্য বিদেশে রপ্তানির সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করার ক্ষেত্রে। এছাড়াও ক্ষুদ্র খাদ্যপণ্য উৎপাদন শিল্পের জন্যেও ১০ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন অর্থমন্ত্রী। মৎস্য জাতীয় দ্রব্য, পশু পালনের জন্য বিশেষ তহবিল ঘোষণা করেছেন সীতারমন। মৌমাছি পালনের ক্ষেত্রে ৫০০ কোটি টাকার তহবিল ঘোষণা করেছেন তিনি।

যে তিনটি প্রশাসনিক আইন সংস্কারের কথা অর্থমন্ত্রীর ঘোষণা করেছেন তা হল, অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আইন সংস্কার করে খাদ্য শস্য, তৈল বীজ, ডাল, পিয়াজ, আলুকে এই আইনের নিয়ন্ত্রণাধীনে রাখা হবে না। এর ফলে বাড়বে প্রতিদ্বন্দ্বিতা এবং কৃষককে ফসলের আরো ভালো মূল্য পেতে সাহায্য করবে বলে দাবি করেছেন তিনি। তবে জাতীয় বিপর্যয়ের মতো ব্যতিক্রমী পরিস্থিতিতে এই পণ্যগুলিকে অত্যাবশ্যকীয় বলে ঘোষণা করার এক্তিয়ার থাকবে সরকারের।

একইসঙ্গে কৃষিজাত পণ্য পরিবহন এবং বিক্রি সংক্রান্ত আইনে পরিবর্তন আনার কথা জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। এতে কোন কৃষক ফসলের ভালো দাম পেলে তো অন্য রাজ্য বিক্রি করতে পারবে। বিক্রির ক্ষেত্রে ই ট্রেডিংয়ের সাহায্যের ওপর জোর দেওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি।

কৃষকরা যাতে চাষের শুরুর সময় তাদের ফসলের ন্যূনতম পায় সেই সুযোগ করে দিতে আইন আনার কথা ভাবছে কেন্দ্র বলে জানান অর্থমন্ত্রী। এর ফলে বড় খুচরা বিক্রেতা, রপ্তানিকারী সংস্থা, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ সংস্থাগুলির সঙ্গে কৃষকদের সরাসরি যোগাযোগ হবে। কৃষি ক্ষেত্রে বেসরকারি বিনিয়োগের যাবতীয় আইনি বাধা দূর করা যাবে। চাষের ঝুঁকি কমিয়ে ন্যূনতম মূল্য নিশ্চিত করাই এই সংস্কারের মূল উদ্দেশ্য।

1 টি মন্তব্য

  1. We saw Congress both at States and Centre and also left Govt in a few States with previous rules and policies. Nothing good result for the agriculture sector and also in Industries not visible, rather it affected farmers and Industrial workers. Why not let’s see this present NDA Government’s reforms and investment for the long term benifits. We should give them a chance at the juncture of COVID-19 .

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here