রামপুরহাট স্টেশনে যাত্রী বিক্ষোভ, ট্রেন থেকে নেমে পড়লেন ১৭ জন

আমাদের ভারত, রামপুরহাট, ১৪ মে: কর্ণাটক সরকার ট্রেন যাত্রীদের খাবার ব্যবস্থা করলেও বাংলার সরকার খাবার, পানীয় জলের কোনও ব্যবস্থা করেনি। এমনকি বেশ কিছু যাত্রীর দুর্গাপুরে নামার কথা থাকলেও তাদের না নামিয়ে নিউ জলপাইগুড়ির উদেশ্যে রওনা দেয় ট্রেন। ফলে ট্রেন রামপুরহাট স্টেশনে থামতেই শুরু হয় যাত্রী বিক্ষোভ। এর ফাঁকে ট্রেন থেকে নেমে পড়েন ১৭ জন যাত্রী। তাদের বাড়ি পাঠিয়ে হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

জানাগিয়েছে, ১২ মে কর্ণাটকের ব্যাঙ্গালোর স্টেশন থেকে একটি স্পেশাল ট্রেন ছাড়ে। ওই ট্রেনে সমস্ত যাত্রীই ছিলেন রাজ্যের। ট্রেনের যাত্রীদের কারও বাড়ি বাঁকুড়া, কারও বা পুরুলিয়া, পূর্ব বর্ধমান, পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূম কিংবা মালদা। ঠিক ছিল পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, দুই বর্ধমানের যাত্রীদের নামানো হবে পুরুলিয়া স্টেশনে। কিন্তু সেখানে না নামিয়ে পরে বলা হয় দুর্গাপুরে নামানো হবে। সেখানেও যাত্রীদের নামতে দেওয়া হয়নি। এরপর বুধবার দুপুরে ট্রেন রামপুরহাট স্টেশনে থামতেই যাত্রীরা প্ল্যাটফর্মে নেমে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে। তাদের অভিযোগ, পানীয় জল নেই। খাবার নেই। এমনকি বাথরুমেও জল নেই। দীর্ঘক্ষণ বিক্ষোভ চলার ফাঁকে ১৭ জন যাত্রী ট্রেন থেকে নেমে পড়েন। তাদের মধ্যে পাঁচ জন বীরভূমের মুরারই থানার রাজগ্রামে, একজন মল্লারপুর থানার বীরচন্দ্রপুর গ্রামের। দুজন মুর্শিদাবাদ জেলার খড়গ্রাম এলাকার বাসিন্দা। বাকিরা পূর্ববর্ধমান জেলার গলসির বাসিন্দা।

ট্রেন যাত্রী কোচবিহারের বাসিন্দা উৎপল বর্মণ বলেন, “বাংলায় অভাব অনটন বেশি। কাজের পরিবেশ নেই। তাই কেরালা কাজ করতে গিয়েছিলাম। ৭৮০ টাকা দিয়ে টিকিট কেটে ট্রেনে উঠেছি। কর্ণাটক সরকার পেট পুড়ে খেতে দিলেও ট্রেন বাংলা ঢুকতেই খাবারের অভাব। পানীয় জল নেই। এই সরকার আমাদের মতো শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে কোনও উদ্যোগ নেয়নি”।

পুরুলিয়ার বাসিন্দা বলদেব গোপ বলেন, “আমরা পুরুলিয়ার টিকিট কেটেছিলাম। কিন্তু সেখানে ট্রেন থামেনি। এরপর আসানসোলে বলা হয় সবাউকে দুর্গাপুরে নামানো হবে। কিন্তু সেখানেও নামতে দেওয়া হয়নি। এই ট্রেন আমাদের নিয়ে গোটা রাজ্য ঘোরাচ্ছে। রাজ্য সরকারের ব্যর্থতার কারণেই আমাদের ট্রেনের মধ্যে খালি পেটে ঘোরানো হচ্ছে”। বিক্ষোভের মধ্যেই আধঘণ্টা পর ট্রেন রামপুরহাট স্টেশন থেকে ছেড়ে যায়। প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, যারা রামপুরহাট স্টেশনে নেমেছেন তাদের বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here