করোনা মোকাবিলায় ভয় পেলে চলবে না, সতর্ক থাকুন, স্থানীয়স্তরে কনটেনমেন্ট জোনে জোর, বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীদের পরামর্শ মোদীর

আমাদের ভারত, ১৩ জানুয়ারি:দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই লক্ষ ছুঁইছুঁই। স্বাভাবিকভাবে কপালে চিন্তার ভাঁজ বাড়িয়েছে এই পরিসংখ্যান। এই পরিস্থিতিতে একের পর এক বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী নিজে। বৃহস্পতিবার দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার জন্য সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ভার্চুয়ালি বৈঠক করেন তিনি। বৈঠকে সুনির্দিষ্টভাবে পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী। আর্থিক গতিবিধি রাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, তার জন্য স্থানীয় স্তরে কনটেইনমেন্ট জোন তৈরীর ক্ষেত্রে জোর দেওয়ার কথা এবং সতর্ক থাকার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। একইসঙ্গে অযথা আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দেন মোদী।

মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষেত্রে ভ্যাকসিন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পথ বলে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। কেন্দ্রে টিকাকরণের সাফল্যে খতিয়ান তুলে ধরে তিনি বলেন দেশের ৯২ শতাংশ প্রাপ্ত বয়স্ক ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ পেয়েছেন। ভারতের টিকা বিশ্ব দরবারে সমাদৃত হয়েছে। করোনার নতুন ভেরিয়েন্ট ওমিক্রন অন্যান্য ভেরিয়েন্টের তুলনায় অনেক বেশি সংক্রমাক। তাই সকলকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে কোভিডের পরবর্তী ভেরিয়েন্টের সঙ্গে লড়াই করার জন্য প্রস্তুত শুরু কথাও বলেন তিনি।

করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য পরিকাঠামো সহ একাধিক কাজের জন্য রাজ্যগুলিকে যে ২৩ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ দেওয়া হয়েছে তার সদ্ব্যবহার হয়েছে বলে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তার জন্য রাজ্যগুলিকে কৃতিত্ব দেন তিনি।

ভার্চুয়াল বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীদের প্রধানমন্ত্রী বলেন কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের রূপরেখা তৈরি করার সময় মনে রাখতে হবে সাধারণ নাগরিকের দৈনন্দিন জীবনযাপনে যেন কোন রকম ভাবে সমস্যা সৃষ্টি না হয়। লক্ষ্য রাখতে হবে আর্থিক গতিবিধি যতটা সম্ভব কম ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই স্থানীয় স্তরে কনটেইনমেন্ট জোন তৈরি করার দিকে নজর দিতে হবে। অযথা আতঙ্কিত হওয়া চলবে না। সতর্ক থাকতে হবে। বহু রোগী হোম আইসোলেশনে আছেন। তাদের সকলকে গাইডলাইন মেনে চলার পরামর্শ দেন তিনি। মোদী বলেন, ইতিমধ্যেই কোভিডের বিরুদ্ধে দু’বছরের লড়াই আমরা পেরিয়ে এসেছি। এখন সবকিছু মানিয়ে নিতে হবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here