টানটান উত্তেজনার মধ্যে গঠিত হল ভাঙড়ের পোলেরহাট ২ গ্রাম পঞ্চায়েত

টানটান উত্তেজনার মধ্যে গঠিত হল ভাঙড়ের পোলেরহাট ২ গ্রাম পঞ্চায়েত

আমাদের ভারত, ভাঙড়, ১৪ আগস্ট: প্রায় দেড় বছর আগে গ্রাম পঞ্চায়েত নির্বাচন হলেও বোর্ড গঠন হয়নি ভাঙড় ২ ব্লকের পোলেরহাট ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের। কার্যত প্রশাসক দিয়েই এতদিন এই পঞ্চায়েত পরিচালনা হচ্ছিল। কিন্তু দীর্ঘদিন বাদে অবশেষে হাইকোর্টের নির্দেশে বুধবার এই পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন সম্পন্ন হল। এই পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন নিয়ে মঙ্গলবার থেকেই এলাকায় যথেষ্ট উত্তেজনা ছিল। কিন্তু বুধবার সকালে কড়া পুলিশি প্রহরার মধ্যেই গঠিত হয় এই পঞ্চায়েত বোর্ড। পঞ্চায়তের প্রধান নির্বাচিত হন সবিতা সর্দার ও উপপ্রধান নির্বাচিত হন আরাবুল পুত্র হাকিমুল ইসলাম।

২০১৭ সালের ১৭ জানুয়ারি ভাঙড়ে পুলিশের সাথে জমি কমিটির বিবাদ বাধে। এলাকায় পাওয়ার গ্রিড বন্ধের দাবী তুলে প্রশাসনের বিরোধিতা করে জমি কমিটি। ঘটনায় জমি কমিটির দুজন সদস্যের প্রাণ যায়। এরপর যতই দিন গড়িয়েছে ততই সমস্যা বেড়েছে এই এলাকায়। তৃণমূল কংগ্রেসের বিরোধিতা করে গত পঞ্চায়েত ভোটে এই পোলেরহাট গ্রাম পঞ্চায়েতে প্রার্থী দেয় জমি কমিটি। মোট ষোলটি আসনের মধ্যে আটটি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতে যায় তৃণমূল কংগ্রেস। অন্য আটটি আসনে ভোট হয়। সেই আটটি আসনের মধ্যে তিনটি আসনে তৃণমূল জিতলেও বাকি পাঁচটি আসনে জয়লাভ করে জমি কমিটির প্রার্থীরা। আর সেই থেকেই নতুন সমস্যার সৃষ্টি হয়।

জমি কমিটি এই পোলেরহাট ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনে বাধা দেয়। তাদের দাবি ছিল জোর করে মানুষকে ভয় দেখিয়ে আটটি আসনে জয় পেয়েছে তৃণমূল। সেই কারণে ঐ আটটি আসনে পুনরায় নির্বাচন না করলে তারা বোর্ড গঠনে অংশগ্রহণ করবেন না। জমি কমিটি এই বোর্ড গঠন প্রক্রিয়ায় বেঁকে বসার কারণে নতুন করে অশান্তির আশঙ্কা করতে থাকে প্রশাসন। আর সেই কারণেই দীর্ঘ দেড় বছর ধরে এই পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন বন্ধ ছিল।

সম্প্রতি উচ্চ আদালত দ্রুত এই পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনের নির্দেশ দেয়। এবং দীর্ঘদিন ধরে এই বোর্ড গঠন না হওয়ার কারণে প্রশাসনের কর্তাদের ভৎসনা করে আদালত। আর আদালতের নির্দেশ মেনেই বুধবার এই পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন সম্পন্ন হয়। তবে, এই বোর্ড গঠন নিয়ে এলাকায় যথেষ্ট উত্তেজনা থাকায় এদিন সকাল থেকেই এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা আঁটসাঁটো করা হয়েছিল। প্রায় পাঁচশো পুলিশ কর্মী মোতায়েন করা হয়েছিল এলাকায়। উপস্থিত ছিলেন রাজ্য ও জেলা পুলিশের উচ্চ পদস্থ আধিকারিকরা। এদিন পঞ্চায়েতের চারিপাশ সি সি টিভি ক্যামেরা দিয়ে মুড়ে ফেলা হয়েছিল। তবে সব বাধা বিপত্তি কাটিয়ে এদিন করা নিরাপত্তার মধ্যে দিয়েই বোর্ড গঠনের কাজ সম্পন্ন হয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × 3 =