বইমেলা চত্বরে নাগরিকত্ব আইন বিরোধী বিক্ষোভ ঠেকাতে সতর্ক পুলিশ

6

সৌভিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা, ২৮ জানুয়ারি: শুরু হয়ে গিয়েছে ৪৪ তম আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলা। কিন্তু এবারে সারা শহরের পরিস্থিতি নিরীক্ষণ করে পুলিশের বিশেষ চিন্তার বিষয়, বইমেলাও হয়ে উঠতে পারে বিক্ষোভ প্রর্দশনের কেন্দ্র। তাই করুণাময়ী মোড়ের কাছে স্থায়ী মেলাপ্রাঙ্গণ এলাকাকে নিরাপত্তার বেষ্টনীতে ঘিরে ফেলেছে বিধাননগর পুলিশ। কোনও বিক্ষোভ প্রদর্শনের চেষ্টা হলে, তা ঠেকাতে রাখা হচ্ছে বিশেষ বাহিনীও।

পুলিশ সূত্রের খবর, বইমেলাকে চারটি ‘জ়োনে’ ভাগ করা হয়েছে। প্রতিটি জ়োনের দায়িত্বে থাকবেন উচ্চপদস্থ এক পুলিশকর্তা। পুরো বইমেলা প্রাঙ্গণের দায়িত্বে থাকেন ডেপুটি পুলিশ কমিশনার পদমর্যাদার আধিকারিক। বইমেলায় প্রস্তুত রাখা হচ্ছে মহিলা পুলিশের বিশেষ বাহিনী। নজরদারির পাশাপাশি মহিলাদের সঙ্গে কোনও অভব্য আচরণ, কটূক্তির ঘটনা ঘটলে দ্রুত তাঁরা পৌঁছে পদক্ষেপ করবেন।

মেলার ভিতরে থাকছে শতাধিক সিসি ক্যামেরার নজরদারি। তার জন্য বইমেলার ভিতরে কন্ট্রোল রুমও খোলা হবে। সেখানে একটি বিশেষ দল সেই নজরদারির দায়িত্বে থাকবে। এর পাশাপাশি ছয়টি ওয়াচ টাওয়ার থাকছে বইমেলায়। সেখানে সর্বদা নজরদারিতে থাকবেন পুলিশকর্মীরা। থাকছে পাবলিক অ্যাড্রেস সিস্টেমও।

বিশিষ্ট ব্যক্তি, ভিআইপি কিংবা ভিভিআইপিদের জন্য বিশেষ এসকর্ট বাহিনী ব্লেজার পরে থাকবেন। বইমেলায় এরা ব্লেজার পুলিশ নামে পরিচিত। এর পাশাপাশি ছয়টি ‘মে আই হেল্প ইউ’ ডেস্ক থাকছে। সেখান থেকেই জলের পাউচ সরবরাহ করা হবে।

শুধু বইমেলার ভিতরেই নয়, বাইরের রাস্তায় যান চলাচল নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি নজরদারিতে বিশেষ জোর দেওয়া হয়েছে। এমনকি ফুটপাতেও থাকছে পুলিশের কয়েকটি দল। বইমেলার বাইরে থাকবে দু’টি কুইক রেসপন্স টিম। করুণাময়ী বাস টার্মিনাসের মধ্যেও নিরাপত্তা ও নজরদারিতে বিশেষ পরিকল্পনা করা হয়েছে। বইমেলায় যাওয়ার জন্য সল্টলেকের বিভিন্ন পথে বিভিন্ন জায়গায় পথ নির্দেশিকা লাগানো হবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here