“লাদাখে চিনের অবিশ্বাস্য আগ্রাসনের যোগ্য জবাব দিয়েছে ভারত”, মার্কিন সচিব

আমাদের ভারত, ৯ জুলাই: লাদাখে অবিশ্বাস্য রকমের আগ্রাসী মনোভাব দেখিয়েছে ড্রাগনের দেশ। আর তার উপযুক্ত জবাব দিয়েছে ভারত। বুধবার এভাবেই আবারো চিনের কড়া সমালোচনা করলেন মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও। তার কথায় লাদাখের আগ্রাসন কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। সামগ্রিকভাবে প্রতিবেশী দেশগুলির প্রতি বেজিংয়ের আগ্রাসী মনোভাবের অঙ্গ এটি। একইসঙ্গে তিনি গোটা বিশ্বের মানুষকে চিনের আগ্রাসী নীতির বিরুদ্ধে একজোট হওয়ারও আহ্বান জানান।

মার্কিন বিদেশ সচিব বলেন, ভারতের বিদেশ মন্ত্রীর সঙ্গে লাদাখ সংঘাত একাধিকবার আলোচনা হয়েছে। অবিশ্বাস্য রকমের আগ্রাসী মনোভাব দেখিয়েছে চিন এবং ভারতের পক্ষে যতটা ভালো জবাব দেওয়া সম্ভব ছিল সেটাই দিয়েছে ভারত। শুধু তাই নয় চিন যেভাবে ভুটানের ভূখণ্ড দখল করতে এগিয়ে আসছে তারও সমালোচনা করেছেন তিনি।

তার কথায়, “সাম্প্রতিক সময়ে ভুটানের সঙ্গেও জমি বিবাদে জড়িয়েছেন চিন। হিমালয় পর্বতমালা থেকে শুরু করে ভিয়েতনামের অধীনে থাকা সামুদ্রিক এলাকা,সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জ সহ এরকম আরও অনেক উদাহরণ রয়েছে।” তিনি বলেন, সীমান্ত বিবাদকে খুঁচিয়ে তোলাটা চিনের স্বভাবে পরিণত হয়েছে। এই দাদাগিরি গোটা বিশ্বে বেশিদিন সহ্য করবে না।

চিনকে হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, প্রতিবেশী দেশগুলির ভূখণ্ড দখল করার এই চেষ্টায় মার্কিন রাষ্ট্রপতি যথেষ্টই ক্ষুব্ধ। তিনি আরো বলেন, চিনের কোন প্রতিবেশী জানে না চিনের সঙ্গে তাদের সীমান্ত ঠিক কোথায় শেষ এবং চিন আদৌ সেটাকে সম্মান করে কিনা?

চিনা কমিউনিস্ট পার্টির মনোভাবের সমালোচনা করে তিনি বলেন,” অগণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে ক্ষমতা ধরে রাখা চিনের কমিউনিস্ট পার্টির নেতৃত্ব বিদেশি শত্রুদের থেকেও নিজেদের দেশের মানুষের মুক্তচিন্তাকে ভয় পায়। চিনা কমিউনিস্ট পার্টির কোন বিশ্বাসযোগ্যতা নেই। করোনার মত মারণ ভাইরাস সম্পর্কে ওরা সঠিক সময় গোটা বিশ্বকে জানায়নি। যার ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হচ্ছে।

তিনি বলেন চিনের এই দখলদারি মনোভাবের বিপদ বিশ্বের শান্তিকামী মানুষ আস্তে আস্তে বুঝতে পারছেন। তিনি বলেন চিন গোটা বিশ্বে যেভাবে প্রভাব বিস্তার করার চেষ্টা করছে তার ফলে বিশ্বের গণতন্ত্র প্রিয় মানুষ তা ভালো চোখে নিচ্ছে না।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here