বাড়ির জলের ট্যাঙ্ক থেকে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার, উত্তেজনা শ্যামনগরে

প্রতীতি ঘোষ, আমাদের ভারত, ব্যারাকপুর, ১ ডিসেম্বর: শ্যামনগরের শান্তিগড় এলাকায় ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করার অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়েছে শ্যামনগরের শান্তিগড় এলাকায়। মৃতার পরিবারের দাবি, তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন এবং তার স্বামী জড়িত আছেন এই ঘটনার সাথে। মৃত স্ত্রীর নাম প্রিয়াঙ্কা পুরকাইত। মৃতার স্বামী আবির পুরকাইতের বিরুদ্ধে তাকে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে খুন করার অভিযোগ উঠেছে।

প্রিয়াঙ্কা দেবীর বাপের বাড়ির আত্মীয়দের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই শারীরিক ভাবে অত্যাচার ও মারধর করত তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকেরা। তাদের দাবি, আজ প্রিয়াঙ্কার শ্বশুর বাড়ির লোকেরা তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে তার বাপের বাড়িতে ফোন করে জানায়। এরপর তার বাপের বাড়ির লোকজ মৃতার শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে তাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করে। সারা বাড়ি এমন কি বাড়ির আশপাশেও খোঁজ শুরু করে। দীর্ঘক্ষণ খোঁজার পর অবশেষে প্রিয়াঙ্কার স্বামী আবির বাবু তার স্ত্রীর মৃতদেহ দেখতে পান তার বাড়ির শিড়ির নীচের জলের ট্যাঙ্কের মধ্যে। এরপর চিৎকার ও গণ্ডগোল শুরু হয়। প্রতিবেশীরাও ছুটে আসেন। খবর দেওয়া হয় পুলিশকে।

জগদ্দল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তদন্ত শুরু করেছে। মৃতার স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মৃতার স্বামীর দাবি, তিনি কিছু জানেন না। তার ঘরে টাকা রাখা ছিল সেগুলিও পাওয়া যাচ্ছে না। অপর দিকে প্রতিবেশীরা গন্ডগোলের সময় দেখেন অভিযুক্ত আবীর পুরকাইতের সাথে ঘরে ছিলেন তার পরিচিত এক আইনজীবী। এই সমস্ত কারণে প্রতিবেশী ও মৃতার বাপের বাড়ির লোকেরা অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছেন কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মী আবীর পুরকাইতের বিরুদ্ধে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here