শুরু যুদ্ধের প্রস্তুতি! সীমান্তে পাক বিমানের ওঠানামা, জবাব দিতে তৈরি ভারত

শুরু যুদ্ধের প্রস্তুতি! সীমান্তে পাক বিমানের ওঠানামা, জবাব দিতে তৈরি ভারত

আমাদের ভারত,১২ আগস্ট: যুদ্ধের প্রস্তুতি শুরু করল পাকিস্তান। পাল্টা দিতে তৈরি ভারতও। কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নিতেই কী করবে পাকিস্তান তা বুঝে উঠতে পারছে না। ভারতের বিরুদ্ধে কোনো বন্ধু দেশ পাকিস্তানের পাশে এসে দাঁড়ায়নি। ইসলামাবাদের করা নালিশে রাষ্ট্রসংঘ কান দেয়নি। তারপরই ভারতের সঙ্গে কুটনৈতিক এবং ব্যবসায়িক সম্পর্ক ছিন্ন করেও কোনও সুবিধাই করে উঠতে পারেনি ইমরান সরকার। তাই যুদ্ধের জিগির তুলতে শুরু করেছে পাকিস্তান

নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর যুদ্ধবিমান মোতায়েন করেছে পাকিস্তান বলে খবর। সীমান্তের ওপারে লাদাখ লাগোয়া স্কারদুতে বায়ুসেনা ঘাঁটিতে চীন নির্মিত জিএফ ১৭ ফাইটার জেট পাঠিয়েছে পাকসেনা। পাক অধিকৃত কাশ্মীরের লাদাখ সীমান্ত লাগোয়া পাক সেনা ঘাঁটিগুলিতে উদ্বেগজনক ভাবে সেনা সক্রিয়তা বেড়েছে বলে গোয়েন্দা সূত্রে খবর।

শনিবার থেকে ওই বিমান ঘাঁটিতে একাধিকবার অবতরণ করেছে পাক বায়ুসেনার c-130 পণ্য পরিবহনকারী বিমান। অনুমান করা হচ্ছে ভারতের সঙ্গে যুদ্ধের জন্যই রসদ মজুত করছে পাক সেনা। অনুমান করা হচ্ছে, ওই ঘাঁটি থেকে বড়সড় বিমান হামলা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে পাকিস্তানের বায়ুসেনা।

তবে, পাকিস্তানের হামলার পাল্টা জবাব দিতে তৈরি রয়েছে ভারতীয় সেনাও। ভারতীয় সেনার তরফেও আশ্বস্ত করা হয়েছে পাক সেনা গতিবিধি বাড়ালেও চিন্তার কিছুই নেই। কারণ পাক বিমানবাহিনীর সমস্ত গতিবিধি ধরা পড়ে যাচ্ছে ভারতীয় র‍্যাডারে। ফলে পান থেকে চুন খসলেই পাকিস্তানকে যোগ্য জবাব দেবে ভারত।

ইতিমধ্যেই ইদ ও স্বাধীনতা দিবসের মধ্যে বড় জঙ্গি হামলা হতে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে। শনিবার রাত থেকে কাশ্মীর সীমান্তে ইসলামাবাদ বিপুল পরিমাণ অস্ত্র সহ সেনা পাঠাচ্ছে বলেও জানা গেছে। হামিদ মির নামে এক পাকিস্তানি সাংবাদিক রবিবার টুইটারে এই খবর দাবি করেন। তার কথা অনুযায়ী কাশ্মীর সীমান্তে পাকিস্তান সরকার সেনা সংখ্যা বাড়াচ্ছে। যার খবর তাকে কাশ্মীরি বন্ধুরাই দিয়েছে।

রবিবার রাতে প্রচুর পরিমাণে অস্ত্র, কামান নিয়ে পাকিস্তানের সেনা কর্মীরা কাশ্মীর সীমান্তে জড়ো হয়েছে। তাদেরকে নাকি অভিনন্দন জানিয়েছে স্থানীয় কাশ্মীরিরা। মুখে স্লোগান চলছে কাশ্মীর বান গয়া পাকিস্তান।

এই টুইট প্রকাশ্যে আসতেই ভারত চূড়ান্ত নজরদারি চালাচ্ছে সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায়। বাড়ানো হয়েছে সেনা জওয়ানের সংখ্যা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 + ten =