জেলার খবর

শান্তিনিকেতনে রাষ্ট্রপতি, সমাবর্তনের আয়োজনের পাশাপাশি ব্যবস্থা ট্রেডমিলের

তারক ভট্টাচার্য

আমাদের ভারত, ১০ নভেম্বর: রবিবার দু’দিনের সফরে শান্তিনিকেতনে পৌঁছলেন বিশ্বভারতীর পরিদর্শক তথা রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। রথীন্দ্র অতিথিগৃহে যান তিনি। কাল বিশ্বভারতীর সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন কোবিন্দ। রবিবার বিকেল ৩টে ৫৪ নাগাদ বিনয়ভবনের কুমিরডাঙা মাঠে নামে রাষ্ট্রপতির হেলিকপ্টার। তাঁকে অভ্যর্থনা জানাতে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়, রাজ্যের মৎস্যমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ, জেলাশাসক মৌমিতা গোদারা বসু, জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং। চপার থেকে নেমে সোজা বিশ্বভারতীর রথীন্দ্র অতিথিগৃহে যায় রাষ্ট্রপতির কনভয়। আজ তিনি এখানেই রাত্রীবাস করবেন। কাল সকাল সাড়ে ১০টা নাগাদ আম্রকুঞ্জের জহরবেদিতে সমাবর্তনে যোগ দেবেন রাষ্ট্রপতি। এখানেই প্রথা অনুযায়ী পড়ুয়াদের হাতে সপ্তপর্ণী (ছাতিমপাতা) ও শংসাপত্র তুলে দেবেন।

সূত্রের খবর, বিশ্বভারতীর উপাচার্য, আধিকারিকদের সাথে দেখা করেছেন রাষ্ট্রপতি। তাঁকে চা ও কাজু দেওয়া হয়েছে। তার পর একটু বিশ্রাম নিয়েছেন তিনি। রাত ৮টা ৩৫ নাগাদ ডিনার করেছেন। তার আধঘণ্টা আগে তাঁর আবাসস্থলে প্রায় আধঘন্টা ট্রেডমিল করেছেন। রথীন্দ্রগৃহে গোদরেজের একটা নতুন খাট লাগানো হয়েছে। সেখানেই তিনি ঘুমোবেন। সকালে রবীন্দ্রভবনে যাবেন। সেখানে রবীন্দ্রনাথের চেয়ারে পুষ্পার্ঘ্য দেবেন। এর মধ্যে বিশ্বভারতীর ভিজিটরস বুকে স্বাক্ষর রাখবেন পরিদর্শক। তার পর সমাবর্তন মঞ্চে যাবেন। উপাচার্যকে সঙ্গে নিয়ে বকুলবিথি থেকে শুরু হবে সমাবর্তনের শোভাযাত্রা। আম্রকুঞ্জের মধ্যে দিয়ে শোভাযাত্রা পৌঁছবে জহরবেদিতে।

সমাবর্তন মঞ্চে উপস্থিত থাকবেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর ও উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী। শুরুতে হবে জাতীয় সঙ্গীত। পরে অতিথিদের বরণ করবেন ছাত্রীরা। বেদগানের মাধ্যমে শুরু হয়ে যাবে সমাবর্তন। সংকল্প বচন পাঠ শেষে উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী স্বাগত ভাষণ দেবেন। পরিদর্শক তথা রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এবছর সমাবর্তনে ‘দীক্ষান্ত ভাষণ’ দেবেন। শান্তি মন্ত্র উচ্চারণের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ হবে। এবছর ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে মোট ৪,৭২৫ জন ছাত্রছাত্রীকে সমাবর্তনের পর সার্টিফিকেট প্রদান করা হবে। বিশ্বকবির আঁকা ছবি উপহার দিয়ে সন্মানিত করা হবে রাষ্ট্রপতিকে। এর পর কোবিন্দ ১ ঘন্টা ৫ মিনিটের মতো ক্যাম্পাসে ঘুরবেন। বিশ্বভারতীর কর্মসমিতির সদস্য, অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল সদস্য, কোর্ট সদস্য, বিভিন্ন ভবন অধ্যক্ষদের সঙ্গে দেখা করবেন। যেতে পারেন পাঠভবন, কলাভবন, রবীন্দ্রভবন চত্বরেও। তার পর চপারে কলকাতা ফিরে আসবেন।

Leave a Comment

eleven + 17 =

Welcome To Amaderbharat. We would like to keep you updated with the Latest News.