সবজির সাথে পাল্লা দিয়ে ভোজ্য তেলের দাম বৃদ্ধি সরকারের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে

আমাদের ভারত, ২০ নভেম্বর: আলু পিয়াজ থেকে শুরু করে শীতকালীন সবজির বিপুল দামে দিশাহারা আমজনতা। তার সাথে শেষ কয়েক মাসে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে ভোজ্যতেলের দামও। সর্ষে, সয়াবিন, অথবা সানফ্লাওয়ার রান্নায় ব্যবহৃত তেলের দাম সরকারের নতুন মাথা ব্যথার কারণ। একটি জাতীয় স্তরের সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশের রিপোর্ট অনুযায়ী গত এক বছরে সব ধরনের রান্না তেলের দাম গড়ে ২০-৩০ শতাংশ বেড়েছে। তারমধ্যে সানফ্লাওয়ার, পামওয়েল, সর্ষে, সয়াবিন সবই রয়েছে।

চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে অমিত শাহের নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিগোষ্ঠীর বৈঠকের এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানা গেছে। ইতিমধ্যে আমদানি বাড়িয়ে পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমানো সম্ভব হয়েছে। সরকারি হস্তক্ষেপে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে আলুর দামও। কিন্তু ভোজ্যতেলের দাম ক্রমশই বাড়ছে। ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তরের কাছে থাকা তথ্য অনুযায়ী বৃহস্পতিবার গোটা দেশে এক লিটার সর্ষে তেলের দাম ১২০ টাকা। যেখানে গত বছর সেটা ছিল ১০০টাকা। গত বছর অক্টোবরে এক লিটার সয়াবিন তেলের দাম ছিল ৯০ টাকা। বর্তমানে তা হয়েছে ১১০ টাকা। সানফ্লাওয়ার সহ অন্যান্য ভোজ্যতেলের দাম একইভাবে বেড়েছে।

ঐ সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে বৃহস্পতিবার কলকাতায় খুচরা বাজারে ১ লিটার সর্ষে তেলের দাম ছিল ১৩৭ টাকা যা গত এক বছর আগেও ১০১ টাকা ছিল। কলকাতায় সয়াবিন তেল বিক্রি হয়েছে ১১৪ টাকা লিটার। সানফ্লাওয়ার অয়েল বিক্রি হয়েছে ১৩৫ টাকায়। বছর খানেক আগে যা ছিল ৯৪ ও ১০২ টাকা।

কলকাতার তুলনায় দিল্লি মুম্বাই চেন্নাইয়ে রান্নার তেলের দাম আরও বেশি। দিল্লিতে লিটার প্রতি সর্ষে তেলের দাম বেড়েছে ১৫০-১৫৫টাকা। মুম্বাইতে ১৬০ টাকা।

জানা গেছে গত ছয় মাসে মালয়েশিয়ায় পাম তেলের উৎপাদন কমেছে যে কারণে অন্যান্য তেলের দাম বেড়েছে। আমাদের দেশে উৎপাদিত পাম তেলের ৭০% খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্পে লেগে যায়। তাই অন্যান্য ভোজ্যতেলের দাম কমাতে পামঅয়েলের ওপর আমদানি শুল্ক যদি কমানো হয় তাহলে পরিস্থিতিতে খানিক বদল আসতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here