দিলীপ ঘোষের উপস্থিতিতে কৃষি আইনের সমর্থনে মিছিল ও সভা কেশিয়াড়িতে

জে মাহাতো, আমাদের ভারত, মেদিনীপুর, ৪ অক্টোবর:
কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যসভায় পাস করিয়েছে কৃষি আইন।সেই আইনের সমর্থনে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শুরু করে বিভিন্ন জেলায় বিজেপির উদ্যোগে চলছে অভিনন্দন সভা ও মিছিল। সেইমতো পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশিয়াড়ি ব্লকের কুকাইতে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের উপস্থিতিতে কৃষি আইনের সমর্থনে মিছিল ও সভার আয়োজন করল বিজেপির কর্মীরা। এদিন কয়েক হাজার কর্মী সমর্থকদের নিয়ে মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। কুকাইয়ের এই কর্মসূচিতে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের হাত ধরে একাধিক তৃণমূল কর্মী এদিন বিজেপিতে যোগদান করে।

সভা শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গে যে সকল পলিটিক্যাল লিডার খুন হচ্ছে তারা সবই এসটি এসসি সম্প্রদায়ের। এছাড়া যে সকল মহিলারা ধর্ষিতা হচ্ছেন খুন হচ্ছেন তারাও পিছিয়ে পড়া অংশের। সেই জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এখানে এসটি, এসসি, ওবিসি কেউ ভোট দেয়নি। আমরা তিনজন এসটি, এসিকে পার্লামেন্টে পাঠিয়েছি। পঞ্চায়েতে উত্তরবংলা ও দক্ষিণবংলার সমস্ত ট্রাইবেল এলাকায় আমরা জিতেছি। সারা ভারতবর্ষে বিজেপির এমপি এবং এমএলএ, এসটি এসসি সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বেশি। মোদীজির উপর পিছিয়ে থাকা মানুষ বিশ্বাস করে। কারণ মোদীজি তাদের উন্নয়নের জন্য কাজ করছেন।

দিলীপ ঘোষ বলেন, বীরভূমে একটি কর্মীসভায় অনুব্রত মণ্ডল বলেছিলেন ৫৫০ ভোটে হেরে আছেন, তাই এলাকায় উন্নয়ন বন্ধ করে দিতে হবে। এর পরিপ্রেক্ষিতে দিলীপ ঘোষ বলেন, “আজকে পশ্চিমবাংলার মানুষের এটা বুঝে নেওয়া উচিত, যে পুলিশকে বোম মারতে বলে যার পার্টি অফিসে বস্তা বস্তা বোম পাওয়া যায়। যে বলে বিরোধীদের ভোট দিলে তাকে উন্নয়ন করতে দেব না। তাদের রাজনীতি করতে দেওয়া উচিত নয়। আগামী নির্বাচনে এর যোগ্য জবাব দেওয়া উচিত। টিএমসি পুরো পার্টিটা একটি পলিসি। আমার বিধায়ক ফান্ডের এখনো কাজ হয়নি। দেড় বছর হল এমপি হয়েছি সাড়ে তিন কোটি টাকার কাজ জমা দিয়েছি। কোনও কাজই করেনি। এরা নিজেরা কাজ করেনা। কাউকে কাজ করতে দেয় না।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here