রোগীর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানতে চেয়ে আরামবাগ মুহুকুমা হাসপাতালে বিক্ষোভ কর্মীদের

আমাদের ভারত, হুগলী, ১ মে: এক বৃদ্ধার মৃত্যুর সঠিক কারণ জানতে চেয়ে এবং ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জামের দাবিতে আরামবাগ মুহুকুমা হাসপাতালে বিক্ষোভ কর্মীদের।

গত মঙ্গলবার জ্বর ও সর্দি নিয়ে আরামবাগ মুহুকুমা হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডের মহিলা বিভাগে ভর্তি হন ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধা নারায়ণী মন্ডল। বাড়ি আরাবাগের তিরোল গ্রাম পঞ্চায়েতের মই গ্রামে। হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর অবস্থার অবনতি ঘটলে তাঁকে আরামবাগ কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে ভর্তি করা হয়। এরপরেই তাঁর মৃত্যু হয়।

মৃত্যুর ঘটনা সামনে আসতেই আরামবাগ মুহুকুমা হাসপাতালের কর্মীরা ওই বৃদ্ধার মৃত্যুর সঠিক তথ্য জানতে চেয়ে এবং ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জামের দাবিতে বিক্ষোভ দেখান। তাদের দাবি, ওই মহিলার মৃত্যুর সঠিক কারণ জানতে হবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে এবং হাসপাতাল কর্মীদের পিপিই কিটের ব্যবস্থা করতে হবে।
মঙ্গলবার যারা হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন তাদের আশঙ্কা যদি ওই মহিলার কোরোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়ে থাকে তাহলে তাদের দায় কে নেবে?

যদিও ওই বৃদ্ধার পরিবার এবং স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর, গত সাত বছর ধরে শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে ভুগছিলেন নারায়ণী মন্ডল। গত এক সপ্তাহ আগেও হাসপাতালে ভর্তি হলে শারীরিক পরীক্ষা নিরীক্ষার পর ঔষধ দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। গত মঙ্গলবার সকাল এগারোটা নাগাদ জ্বর ও সর্দি নিয়ে আরামবাগ মহকুমা হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডের মহিলা বিভাগে তিনি ভর্তি হন। এরপর তাঁর লালারস সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয় এবং তাকে আরামবাগ কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে ভর্তি করা হয়। ওই দিনই তাঁর মৃত্যু হয়।

আজ সকালে মৃতের পরিবারের বাড়িতে যায় পুলিশ। পরিবারের দুই সদস্যকে কোয়ারেন্টাইন সেটারে রাখা হয়েছে এবং পরিবারের সকলকে বাইরে বের না হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

যদিও প্রশাসন সূত্রে ওই বৃদ্ধার মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যায়নি। তবে আরাবাগ প্রশাসনের পক্ষ থেকে জরুরি বৈঠক চলছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here