পুরভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনী নাকি রাজ্য পুলিশ? সোমবারই জানাবে কমিশন

রাজেন রায়, কলকাতা, ৫ ডিসেম্বর: আসন্ন কলকাতা 
পুরভোটে রাজ্য পুলিশ কোথায় কিরকম পুলিশ বাহিনী দিতে পারবে, তা নিয়ে রাজ্যের কাছে বিস্তারিত পরিকল্পনা চেয়ে পাঠিয়েছিল রাজ্য নির্বাচন কমিশন। শনিবার কলকাতা পুলিশের তরফে কমিশনে একটি রিপোর্ট জমা দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে রাজ্য পুলিশ পক্ষপাতমূলক আচরণ করতে পারে, এই আশঙ্কায় বারবার নির্বাচন কমিশনে দেখা করে কেন্দ্রীয় বাহিনীর পক্ষে সওয়াল করেছে বিরোধী রাজনৈতিক দল বিজেপি। তাই কলকাতা পুলিশ না কেন্দ্রীয় বাহিনী, তা নিয়ে সোমবারই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে কমিশন।

তবে, সূত্রের খবর- ১)রাজ্য পুলিশের দিকেই পাল্লা ভারী কমিশনের। কারণ কলকাতা নির্বাচনে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে আনার কোনও যৌক্তিকতা দেখছে না নির্বাচন কমিশন। পাশাপাশি এলাকা টহলদারি থেকে আরম্ভ করে তাদের থাকার ব্যবস্থা বিশাল খরচ সাপেক্ষ। পুরভোটের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে ১৮৪ কোটি টাকা। সেখানে বাহিনী এলে খরচ বাড়বে। ২) বাহিনী এলেই হল না, বাহিনীকে ব্যবহার করার মতো পর্যাপ্ত লোক রাজ্যের কাছে এই মুহূর্তে নেই। ৩) কেন্দ্রীয় বাহিনী এলে শুধু কলকাতা পুরভোটে নয়, আগামী সময়ে সমস্ত পুরভোটেই কাজে লাগাতে হবে। কিন্তু সেই ভোটের নির্ঘন্ট এখনও প্রকাশ করা হয়নি। সে দিক দিয়ে কলকাতা পুলিশের পরিকল্পনা যথেষ্ট ঠিকঠাক মনে হয়েছে নির্বাচন কমিশনের।

কলকাতা পুলিশ সূত্রে খবর, মোট ৩৭ হাজার পুলিশ দিয়ে পুরভোট করার প্রস্তাব রাখা হয়েছে। যেখানে ৩০ হাজার কলকাতা পুলিশ ও ৭ হাজার রাজ্য পুলিশ মোতায়েন করা হতে পারে, থাকবে না কোনও সিভিক ভলান্টিয়ার। এই হিসেবে চললে মোট ৫,১২৭টি বুথের প্রতিটি বুথে ১ জন সাব ইনস্পেক্টর, ১ জন এএসআই, ২ জন সশস্ত্র পুলিশ ও ২ জন কনস্টেবল থাকবে। ‌বিধানসভা নির্বাচনে মাত্রাতিরিক্ত হিংসার ঘটনা ঘটায় বারবার কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাবি জানিয়ে চলেছে বিজেপি। ইতিমধ্যে তাঁরা সুপ্রিম কোর্টে মামলাও দায়ের করেছে। কেন্দ্রীয় বাহিনীর স্বপক্ষে দাবি রেখেছেন রাজ্যপাল  জগদীপ ধনকরও। এখন শীর্ষ আদালতের নির্দেশের ওপরেও নির্ভর করছে অনেক কিছুই। তবে সোমবার এই নিয়ে নিজেদের তরফের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করতে পারে রাজ্য নির্বাচন কমিশন।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here