বর্তমানে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন রাতারাতি সেলিব্রিটি হওয়া রানু মণ্ডল

স্নেহাশীষ মুখার্জি, আমাদের ভারত, নদিয়া, ১০ জুন:
হঠাৎই সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে রাতারাতি স্টার হয়ে গিয়েছিলেন। তার গান ভাইরাল হওয়ার পর মুম্বাই গিয়ে খ্যাতনামা সঙ্গীত শিল্পীদের সঙ্গে গান করেছেন। হ্যাঁ তিনি হলেন রানাঘাটের রানু মন্ডল। কিন্তু বর্তমানে দিনের পর দিন অনাহারে দিন কাটছে তার। খোঁজ নেয় না শুভাকাঙ্খীরা।

কখনো রাস্তার পাশে আবার কখনো রানাঘাট স্টেশনে ঘুরে বেড়াতেন তিনি। অনেকটা ভবঘুরে বললেও ভুল হবে না। গায়ে একটা ছেঁড়া নোংরা জামা। দেখলেই বোঝা যায় দীর্ঘদিন পরিষ্কার করা হয়নি পোশাকটিকে। একদিন রানাঘাট স্টেশনে বসে নিজের মনে গান গাইছিলেন তিনি। সেই গান পাশের এক বসে থাকা যুবকের কানে এসে পৌঁছায়। নিজের মোবাইলে ভিডিও রেকর্ড করতে এক মিনিটও দেরি করেননি তিনি। ভিডিওটি পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করে দেন। দিন কয়েকের মধ্যেই গোটা দেশজুড়ে ওই ভিডিওটি ভাইরাল হতে থাকে। ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর ভিড় জমাতে থাকে মিডিয়াগুলি। সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হতেই শোরগোল পড়ে যায় গোটা এলাকায়। ভিড় জমাতে থাকে রানু মন্ডলের বাড়িতে।

এরই মাঝে মুম্বাই থেকে যোগাযোগ করা হয় রানু মন্ডলের সঙ্গে। বেশ কিছুদিন তিনি মুম্বাইয়ে গিয়ে বিখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী হিমেশ রেশমিয়ার সঙ্গেও গান করেন। তার সেই “তেরি মেরি কাহানি” গান গোটা দেশজুড়ে শোনা যায়। কিন্তু বর্তমানে রানু মন্ডল কেমন আছেন? লকডাউনের পর সদ্য কেরল থেকে বাড়ি ফিরেছেন রানু মন্ডল। রানু মন্ডল বলেন, বাড়ি ফেরার পর টানা পাঁচ দিন না খেয়ে কাটাতে হয়েছে তাকে। ঘরে কোনো খাবার ছিল না। খোঁজ নেয়নি কেউ। এরপর এক সবজিওয়ালাকে ধরে কিছু সবজি বাড়িতে তিনি দিয়ে যেতেন। সেই সবজি সেদ্ধ করেই তিনি খেতেন। বাড়িতে খাবার চাল না থাকার কারণে জুটত না ভাত। এখনো না খেয়ে তাকে কাটাতে হয়।

রানাঘাট স্টেশনে পড়ে থাকা সেই রানু মন্ডল রাতারাতি সেলিব্রেটি হয়ে আবার কি সেই জায়গাতেই ফিরে এল? প্রশ্নটা থেকেই যাচ্ছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here