রাস্তা সংস্কারের দাবিতে পুরুলিয়ার পুস্তি গ্রাম পঞ্চায়েতের বাসিন্দাদের আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি

সাথী দাস, আমাদের ভারত, পুরুলিয়া, ১২ জুলাই: অতিরিক্ত বালি বোঝাই ট্রাক্টরের দৌরাত্ম্যে রাস্তা খারাপ হওয়ার অভিযোগে ক্ষোভে ফুঁসছেন গ্রামবাসীরা। পুরুলিয়ার ঝালদা ১ ব্লকের পুস্তি গ্রাম পঞ্চায়েতের চককেড়ুয়ারি গ্রাম থেকে ঝাড়খন্ড সীমান্তবর্তী সুবর্ণরেখা নদীর শ্যামনগর ঘাট প্রায় দুই কিমি রাস্তা বেহাল। তাই পার্শ্ববর্তী গোসাইডি, চককেড়ুয়ারি, তরাং, পুস্তি সহ কয়েকটি গ্রামের বাসিন্দারা সমস্যায় পড়েছেন বলে অভিযোগ। গ্রামের চিত্তরঞ্জন মাহাতো, ভূদেব কুইরি, ঝালদা ১ ব্লকের কুড়মি সমাজের নেতা সৃষ্টিধর মাহাতো জানান, ঝাড়খন্ড সরকার নদীর উপর ব্রিজ তৈরি করেছে এই রাজ্যের সঙ্গে যোগাযোগ সুগম করতে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ সরকার মাত্র  দুই কিলোমিটার রাস্তা এখনও নজর দিল না বলে আক্ষেপ তাঁদের।

এই রাস্তা খারাপ হওয়ার মূল কারণ শ্যামনগর ঘাট থেকে প্রতিদিন ৪০-৫০টি ট্রাক্টর ওভারলোড বালি অবৈধভাবে নিয়ে যাতায়াত। অবিলম্বে এই সব অবৈধ ঘাট বন্ধ করার দাবি জানান গ্রামবাসীরা। এই নিয়ে তাঁরা মহকুমা শাসক, সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক এবং ভূমিসংস্কার দফতরকেও লিখিত অভিযোগ করেছেন। ফল কিছু হয়নি।
এই রাস্তা খারাপ থাকায় ব্যবসার জন্য এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য ঝাড়খণ্ডের রাঁচিতে যাতায়াতে অসুবিধা হচ্ছে। এখান দিয়ে পাশেই ঝাড়খন্ডের সিলি, মুরি বাজারে সবজি বিক্রি করতে যেতে অসুবিধা হচ্ছে। এখানের বেশ কিছু ছাত্র ছাত্রী সিলি কলেজে পড়াশোনা করেন। যাতায়াতের এটাই মূল রাস্তা। তাই দ্রুত রাস্তা সংস্কার ও বালি ট্রাক্টর এই রাস্তায় বন্ধ করার দাবি জানান।  না হলে গ্রামবাসীরা আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দেন।

স্থানীয় বাসিন্দা জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক শংকর মাহাতো বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন দফতরকে জানিয়েছি। মহকুমা শাসক বলে ছিলেন জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে এই সব বন্ধ হয়ে যাবে কিন্তু এখনও চলছে। আসলে এই সরকার কালা, এখানে বলেও কোনো লাভ নেই। কারণ পুরোটাই বোঝাপড়ায় চলে।’

প্রশাসনের পক্ষ থেকে নদী থেকে বালি উত্তোলন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। চলছে নিয়মিত অভিযান।বেশ কয়েকটি বালি বোঝাই ট্রাক্টর আটকও হয়েছে। কিন্তু পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়ে গিয়েছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here