ঝাড়গ্রাম জেলার রিদমের জন্মদিন পালিত হল ডেবরার হ্যান্ডিক্যাপ্ট সোসাইটির শিশুদের সাথে

জে মাহাতো, আমাদের ভারত, মেদিনীপুর, ১ জুলাই: চেনা ছন্দের বাইরে গিয়ে পালিত হল জন্মদিন। ঝাড়গ্রাম জেলার জুনশোলা গ্রামের বাসিন্দা রেলওয়ে কর্মচারী বিশ্বজিৎ পাল ও গৃহবধূ রূপশ্রী পালের একমাত্র সন্তান রিদম পালের অষ্টম জন্মদিন ছিল বুধবার। বিশ্বজিৎ পাল ও স্ত্রী রূপসী পালের ইচ্ছা ছিল এবার ছেলের জন্মদিন একটু চেনা ছকের বাইরে গিয়ে পালন করার। বিশ্বজিৎ বাবুর এই ভাবনাকে সফল করতে এগিয়ে আসেন সুবর্ণ রৈখিক ভাষা ও সংস্কৃতি চর্চা বিষয়ক ফেসবুক গ্রুপ “আমারকার ভাষা,আমারকার গর্ব”র বন্ধুরা।

এই গ্রুপের বন্ধুদের পক্ষে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন সুমিত দাস, স্বর্ণালী কুন্ডু, আনন্দ বিষুই, তপতী রানা, বিশ্বজিৎ মহাপাত্ররা। এই বন্ধুদের উৎসাহ ও সহযোগিতায় বিশ্বজিৎ বাবুরা যোগাযোগ করেন ডেবরার মাড়তলা এলাকায় অবস্থিত আশার আলো হ্যান্ডিক্যাপ্ট সোসাইটির কর্ণাধার অমিত পালের সাথে। স্থির হয় আশার আলো সোসাইটির তত্ত্বাবধানে থাকা বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের সঙ্গে পালিত হবে ছোট্ট রিদমের জন্মদিন। পরিকল্পনা মতো বুধবার সকালে ছেলে রিদম ও বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে বিশ্বজিৎবাবুরা হাজির হন আশার আলো সোসাইটিতে। সোসাইটির তত্ত্বাবধানে থাকা চল্লিশটি বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুর হাতে তুলে দেওয়া হয় নতুন পোশাক, কাটা হয় কেক, বিতরণ করা হয় চকোলেট, ছিল মিষ্টিমুখেরও আয়োজন।

অন্যদিকে সোসাইটির তরফ থেকে উপস্থিত অতিথিদের হাতে তাঁদের তৈরি কিছু জিনিষ তুলে দেওয়া হয় উপহার হিসেবে। এই ধরনের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন আশার আলো হ্যান্ডিক্যাপ সোসাইটির কর্ণাধার অমিত পাল। ভিন্ন ধরনের এই জন্মদিনের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে উপস্থিত ছিলেন ফেসবুক গ্রুপের বন্ধু সুমিত দাস, সুদীপ কুমার খাঁড়া, স্বার্ণালী কুন্ডু, তপতী রানা, আনন্দ বিশুই, বিশ্বজিৎ মহাপাত্র, নরসিংহ দাস, মণিকাঞ্চন রায়, সুব্রত জানা, সেলিম মল্লিকরা।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here