রাস্তা মেরামতের দাবিতে মধ্যরাত থেকে আগুন জ্বালিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য পথ অবরোধ

রাস্তা মেরামতের দাবিতে মধ্যরাত থেকে আগুন জ্বালিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য পথ অবরোধ

আমাদের ভারত, উত্তর দিনাজপুর, ১২ জুন: ভাঙ্গা রাস্তা মেরামতের দাবিতে মধ্যরাত থেকে রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য পথ অবরোধ করলেন গ্রামের বাসিন্দারা। এলাকায় উত্তেজনা। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ থানার ১০ নম্বর মাড়াইকুড়া গ্রামের শ্যামপুর মোড় এলাকায়।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, বিগত পঞ্চায়েত ভোটের অনেক আগে থেকেই এলাকার গুরুত্বপূর্ণ এই রাস্তাটি ভেঙ্গে পড়ে রয়েছে। স্থানীয় পঞ্চায়েত থেকে শুরু করে প্রশাসন রাস্তাটি মেরামতের কোনও উদ্যোগই গ্রহন করছে না। অথচ প্রায় প্রতিদিনই ভাঙ্গা রাস্তার কারনে এই জায়গায় ঘটে চলেছে একের পর এক দুর্ঘটনা। বাধ্য হয়েই গ্রামের বাসিন্দারা অনির্দিষ্টকালের জন্য পথ অবরোধ আন্দোলনে শামিল হয়েছেন। তাদের দাবি, যতক্ষণ না রাস্তা মেরামতের কাজ শুরু করা ততক্ষণ পথ অবরোধ চলবে।

রায়গঞ্জ শহর লাগোয়া মাড়াইকুড়া গ্রামপঞ্চায়েতের শুরু হওয়া শ্যমপুর মোড় এলাকার রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন শ’য়ে শ’য়ে যানবাহন থেকে শুরু করে হাজার হাজার মানুষ চলা ফেরা করেন। এই রাস্তাই প্রায় পঞ্চাশটি গ্রামের মানুষের রায়গঞ্জ শহরে চিকিৎসা থেকে পড়াশুনা, হাটবাজার সবকিছুই নির্ভর করে। দীর্ঘ দু’বছর ধরে এই রাস্তার প্রায় ৮০০ মিটার এলাকা ভেঙ্গে পড়ে রয়েছে। কোনও হেলদোল নেই প্রশাসনের। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে একবার স্থানীয় বাসিন্দারা পথ অবরোধ আন্দোলনে শামিল হয়েছিলেন। নির্বাচনের পরে রাস্তা মেরামত করা হবে প্রশাসনের এই আশ্বাসে সে সময় আন্দোলন তুলে নিয়েছিলেন গ্রামের বাসিন্দারা। পঞ্চায়েত ভোট এমনকি লোকসভা ভোটও পার হয়ে গেলেও এই রাস্তা মেরামতের কোনও উদ্যোগ নেয়নি প্রশাসন। ভাঙ্গা রাস্তায় জল জমে ডোবার রূপ নিয়েছে। সেই জলের ওপর দিয়েই যাতায়াত করতে হয়। ভাঙ্গা রাস্তার কারনে এখানে নিত্যদিন ঘটে চলেছে দুর্ঘটনা। দুর্ঘটনার কবলে পড়ে মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে।

প্রশাসনিক উদাসীনতার অভিযোগ তুলে মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে রায়গঞ্জ-শ্যামপুর রাস্তাটি অবরোধ করেন সংশ্লিষ্ট গ্রামের বাসিন্দারা। রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভও দেখান বাসিন্দারা। বাসিন্দাদের পথ অবরোধের জেরে বন্ধ হয়ে গিয়েছে সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রায় পঞ্চাশটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষের চলাচল। অথচ এখনও পর্যন্ত প্রশাসনের কোনও উদ্যোগ দেখা যায়নি। ফলে ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকার মানুষ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × 2 =