বোমা ফাটালেন সারদা-কর্তা, “টাকা নিতেন, ব্ল্যাকমেল করতেন শুভেন্দু অধিকারী”, বিস্ফোরক দাবি সুদীপ্ত সেনের

আমাদের ভারত, ২৪ জুন: সল্টলেকে এমপি এমএলএ কোর্টে মামলার শুনানিতে হাজিরা দিতে এসে কার্যত বড়সড় বোমা ফাটালেন সারদা-কর্তা সুদীপ্ত সেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে সুদীপ্ত সেন বলেছেন, সিবিআই ডিরেক্টরকে তিনি নিজের লেখা দ্বিতীয় চিঠিতে শুভেন্দু অধিকারীর নাম আছে।

আদালতে প্রবেশ এবং বেরোনোর সময় এই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দেন সুদীপ্ত সেন। সারদা কর্তা বলেন, তার দেওয়া চিঠিতে বিস্তারিত তিনি সবটা লিখেছেন। তাকে জিজ্ঞাসা করা হয় কার নাম লিখেছেন? জবাবে তিনি বলেন,”আমি শুভেন্দু অধিকারী নাম লিখেছি”। এরপর তাকে প্রশ্ন করা হয় শুভেন্দু কতবার টাকা নিয়েছিলেন? জবাবে তিনি বলেন, “অনেকবার”। তাকে জিজ্ঞাসা করা হয় টাকা-পয়সার জন্য কি তাকে কোনো চাপের মুখে পড়তে হয়েছিল? সারদা কর্তা বলেন “আমায় ব্ল্যাক মেইল করত”। কেন টাকা নিয়েছিলেন শুভেন্দু? সুদীপ্ত সেন বলেন, “জমির বিষয় ছিল আর একটা প্ল্যান স্যাংসানের বিষয় ছিল।”

একুশের বিধানসভা ভোটের আগে এই চিঠির বিষয়টি উঠে এসেছিল। সেই চিঠি নিয়ে সরগরম হয়েছিল রাজ্য রাজনীতি। সারদা-কর্তা সুদীপ্ত সেনের সিবিআইকে লেখা চিঠি নিয়ে হৈচৈ পড়েছিল। শোনা গিয়েছিল যে, ওই চিঠিতে সুদীপ্ত সেন অনেক রাজনৈতিক নেতার নাম লিখেছিলেন। তাদের মধ্যে ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী, বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী।

এরপর আবার দিন কয়েক আগে শ্যামনগরের সভা থেকে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সুদীপ্ত সেনের সেই চিঠি প্রসঙ্গ তোলেন। তিনি বলেছিলেন, সুদীপ্ত সেন তো নিজে চিঠি লিখে বলেছেন শুভেন্দু অধিকারী তার থেকে মুড়ি-মুড়কির মতো টাকা নিয়েছেন। কই তাকে তো সিবিআই ডাকছে না। বলা যায় সুদীপ্ত সেনের এই চিঠি নিয়ে ময়দানে নেমে পড়েছে তৃণমূল। দাবি উঠেছে শুভেন্দুকে গ্রেপ্তার করে সুদীপ্ত সেনের সামনে বসিয়ে জেরা করতে হবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here