শ্বশুর বাড়ির থেকে জামাইয়ের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার

আমাদের ভারত, দক্ষিণ ২৪ পরগণা, ১৬ আগস্ট: শ্বশুরবাড়ির দোতালার ঘরের ভিতর থেকে রবিবার সকালে জামাইয়ের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হওয়ায় চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। নিহতের নাম আলাউদ্দীন লস্কর (৩২)।
ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার উস্থি থানার তু্ল্যান গ্রামে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিহত আলাউদ্দিন লস্করের সঙ্গে স্ত্রী নাজিমা বিবির বেশ কিছু দিন ধরে পারিবারিক অশান্তি চলছিল। প্রায় একমাস আগে অশান্তির জেরে স্ত্রী নাজিমা উস্থি থানার তুল্যান গ্রামে বাপের বাড়িতে চলে আসে। শনিবার আলাউদ্দিন ও তার পরিবারের লোকজন তুল্যানে নাজিমার বাপের বাড়িতে আসে। গ্রামের কিছু বিশিষ্টজন এবং নাজিমার বাপের বাড়ির লোকজন মিলে আলোচনা করে যাতে আগামীদিনে কোন অশান্তি না হয় দুজনের মধ্যে। আলোচনার পর আলাউদ্দিনের বাড়ির লোকজন চলে যায়। রাতে শ্বশুরবাড়িতে থেকে রবিবার সকালে স্ত্রী নাজিমাকে সঙ্গে নিয়ে বাড়ি যাওয়ার কথা ছিল আলাউদ্দিনের। কিন্তু রবিবার সকালে শ্বশুরবাড়ির দোতালার উপরের ঘর থেকে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয় জামাই আলাউদ্দিনের।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, প্রায় ১২ বছর আগে মামাতো বোন নাজিমার সঙ্গে বিয়ে হয় আলাউদ্দিনের , তাদের ৮ বছরের একটি কন্যা সন্তানও আছে। বিয়ের কিছু দিন পর থেকে নানান কারণে দুজনের মধ্যে অশান্তি শুরু হয়। প্রায় ১ মাস আগে অশান্তির জেরে নাজিমা বাপের বাড়িতে চলে আসে। গত শনিবার আলাউদ্দিন লোকজন নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে আসে আলোচনা সভা হয় যাতে আগামীদিনে কোন অশান্তি না হয়। ওই দিন রাতে শ্বশুরবাড়ি থেকে যায় আজ সকালে শ্বশুরবাড়ি দোতলার ঘর থেকে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়।

নিহতের শাশুড়ি সাবনুর বিবি জানান, রাতে খাওয়ার পর মেয়ে জামাই উপরের ঘরে ঘুমাতে যায় সকালে বড় বউমা ঘর ঝাঁট দেওয়ার জন্য যখন ঘরের দরজা খোলে তখন দেখতে পায় ঘটনাটি। ঘটনার খবর পেয়ে উস্থি থানার পুলিশ এসে মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের করা মর্গে পাঠায়। ঘরের মধ্যে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায় এটা খুন না আত্মহত্যা তা তদন্ত করে দেখছে পুলিশ।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here