রাজ্যে ছয়মাসের মধ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন হবে: সৌমিত্র খাঁ

রাজ্যে ছয়মাসের মধ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন হবে: সৌমিত্র খাঁ

আমাদের ভারত, সিউড়ি, ১০ সেপ্টেম্বর: “কয়লা চোর, অনুব্রত মণ্ডল। কয়লা চুরির টাকা যায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে। আর পাথরের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বীরভূমের পুলিশ সুপার শ্যাম সিংকে। তিনিই তৃণমূলের অর্থভাণ্ডার বাড়াচ্ছে। আমার বিরুদ্ধে মামলা করা হোক। আমি সুপ্রিম কোর্টে প্রমাণ দেব। ছয়মাস পর রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন হবে। তখন পুলিশ পোস্টিং রাজ্যপাল করবেন। সেই সময় হাতের কাছে চলে এসেছে। এই কটা মাস দাঁতে দাঁত লাগিয়ে পড়ে থাকতে হবে”। বুধবার সিউড়িতে এমনই মন্তব্য করেন বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ।

প্রসঙ্গত, ৬ সেপ্টেম্বর গুলিবিদ্ধ হন তৃণমূল কর্মী স্বরূপ গড়াই। কলকাতার পার্ক স্ট্রিটের একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে তার মৃত্যু হয়। এরই প্রতিবাদে সিউড়ি জেলা পুলিশ সুপারের অফিসের সামনে মঙ্গলবার থেকে অবস্থা বিক্ষোভে বসেছে বিজেপি। এদিন বিকেলে সেই অবস্থান বিক্ষোভে হাজির হন সাংসদ সৌমিত্র খাঁ।

এদিন বক্তব্য রাখতে গিয়ে শাসক দল এবং পুলিশকে তুলোধোনা করেন তিনি বলেন, “এরাজ্যে গণহত্যা চলছে। গণহত্যার নায়িকা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভয় পেয়েছেন। যদি স্বরূপ গড়াইয়ের মৃতদেহ কালীঘাটের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয় তাহলে কলকাতার মানুষ তার স্বরূপ বুঝতে পারবেন। তাই চুরি করে মৃতদেহ নিয়ে পালিয়ে এসেছে পুলিশ”। পুলিশকে কটাক্ষ করে সৌমিত্রবাবু বলেন, “উর্দি পড়া পুলিশ অনুব্রত মণ্ডল ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চাকর। এখানকার পুলিশ সুপার শ্যাম সিং জেএনইউতে পড়েছে। তিনি যেখানে যান সেখানে বিরোধীদের লাভ হয়। পুরুলিয়ায়া তৃণমূলকে সাফ করে দিয়ে এসেছেন। এখানে এসে পাথরের দায়িত্ব নিয়েছে। সেই টাকা দিয়ে তৃণমূলের অর্থভাণ্ডার সমৃদ্ধ করছে। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে পুলিশ পোস্টিং করে দেন। কিন্তু তাতে ভয় করবেন না”।

মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যার দিকে তাকাবেন সেই ধ্বংস হয়ে যাবেন। তালিকায় পুলিশ অফিসার থেকে দলের বিধায়ক সাংসদ আছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জোট সঙ্গী চিদাম্বরম জেল খাটছেন। ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও জেলের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছেন। আপনারা লাগাতার আন্দোলন করুন। দেখবেন এই শ্যাম সিং আপনাদের পার্টি অফিসে বসবে। ভারতী ঘোষ বলেছিলেন, জঙ্গলের মা। এখন স্বার্থ ফুরিয়ে গিয়েছে। তাকে হেনস্থা করছে। কিন্তু ভারতী দিদি বিজেপিতে এসে জনতার সঙ্গে এসে বুঝিয়ে দিয়েছেন জনতাই শেষ কথা”।

শেষে তিনি দলীয় কর্মীদের জঙ্গি আন্দোলন করার অনুরোধ করেন। তিনি বলেন, “আপনারা জঙ্গি আন্দোলন করুন দেখি পুলিশ কত জেলে ভরে। আমাদের আন্দোলন করতে হবে থানার ওসির বিরুদ্ধে। আমাদের লড়াই পুলিশ ও অনুব্রত মণ্ডলের সঙ্গে জনতার ক্ষমতার। তাদের অর্থনৈতিক ভাবে অক্ষম করে দিতে হবে। তাহলে থানার ওসিরা আপনাদের কাছে ছুটে আসবে”। সৌমিত্রবাবু বলেন, “অনুব্রত পাপের প্রায়শ্চিত্ত করছেন। উনাকে আমরা দলে নেব না। অনুব্রতর বিরুদ্ধে এক হাজার মামলা হবে। তার আগে উনি আর শুভেন্দু চেষ্টা করছেন ভারতীয় জনতা পার্টিতে ঢুকতে। অনুব্রতবাবু নাম লেখানোর জন্য তদ্বির শুরু করেছেন”।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ten − five =

amaderbharat.com

Welcome To Amaderbharat.com, Get Latest Updated News. Please click I accept.