টিন ভাঙ্গা লোহা ভাঙ্গার দোকান থেকে উদ্ধার চুরি যাওয়া ট্রলি ভ্যান, চাঞ্চল্য চন্দ্রকোনার রঘুনাথগড় এলাকায়

পার্থ খাঁড়া, আমাদের ভারত, পশ্চিম মেদিনীপুর, ৬ জুলাই: পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনা ২ নং ব্লকের বসনছোড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের রঘুনাথগড় এলাকায় একটি টিন ভাঙ্গা লোহা ভাঙ্গার দোকান থেকে উদ্ধার হল চুরি হওয়া ট্রলি ভ্যান। ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।

ঘটনা প্রসঙ্গে জানা যায়, চন্দ্রকোনা পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ড রঘুনাথপুর এলাকার বাসিন্দা ভগীরথ সাহার বাড়ি থেকে একটি ট্রলি ভ্যান চুরি হয় বৃহস্পতিবার রাতে। পরদিন অর্থাৎ শুক্রবার সকালে তা খোঁজ করলে না মেলায় পাশ্ববর্তী এলাকা রঘুনাথগড়ে রুব্বান মির্জা নামের এক ব্যবসায়ীর টিন ভাঙ্গা লোহা ভাঙ্গার দোকানের গোডাউনে মেলে ভগীরথ সাহার চুরির যাওয়া ট্রলি ভ্যানটি। আর এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে ট্রলি ভ্যানের মালিক ভগীরথ সাহা। তার অভিযোগ, দোকানের মালিকের কাছে তার চুরি হওয়া ট্রলি ভ্যানটি চাইতে গেলে উল্টে হুমকি দেওয়া হয়। আর এতেই উত্তেজনার সৃষ্টি হয় এলাকায়। ভিড় জমে যায় বহু মানুষের।

ভগীরথ সাহার অভিযোগ, রুব্বান মির্জা টিন ভাঙ্গা, লোহা ভাঙ্গার দোকানের আড়ালে চুরির জিনিসপত্র কেনাবেচা করে। তার চুরি যাওয়া ট্রলিটি পাওয়া গেছে রুব্বান মির্জার দোকানে। কিন্তু তা চাইতে গেলে দুর্ব্যবহার করেন দোকানের মালিক এমনই অভিযোগ। আর এই ঘটনা সামনে আসতেই আরও একাধিক মানুষ জড়ো হন ওই দোকানে এবং তারাও দাবি করেন, তাদেরও চুরি যাওয়া সাইকেল বা আরও অন্যান্য জিনিসপত্র দেখতে পাওয়া গেছে রুব্বান মির্জার এই দোকানে। এই ঘটনায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।

ওই দোকানের মালিক চুরি যাওয়া সমস্ত জিনিসপত্র কেনাবেচা করে এই অভিযোগে ক্ষিপ্ত এলাকাবাসীরা। ঘটনায় খবর দেওয়া হয় চন্দ্রকোনা থানায়, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে চুরির ট্রলি ভ্যানটি তার মালিককে ফিরিয়ে দেন। এর আগেও ওই দোকানে চুরি হওয়া একাধিক সাইকেল দেখতে পেয়ে সাইকেলের মালিকরা চাইতে গেলে তাদেরও হুমকি দিয়ে তাড়িয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ।

যদিও ওই দোকানের মালিক রুব্বান মির্জা জানান, তার কাছে অনেকেই সাইকেল সহ বিভিন্ন জিনিস বিক্রি করতে নিয়ে আসে আমি তা পয়সা দিয়ে কিনি। কিন্তু তা চুরির কিনা বুঝবো কি করে? তবে ওই দোকানের মালিক স্বীকার করেছেন তার দোকান থেকে চুরির সাইকেল সহ কিছু জিনিসপত্র চাইতে এসেছিল সাইকেলের মালিকরা। আমি তাদের বলেছি আমি যেহেতু টাকা দিয়ে কিনেছি আমাকে টাকা দিলে তবেই তার জিনিস ফেরত দেবো। এলাকাবাসীদের থেকে চুরি হওয়া জিনিসের মালিকদের অভিযোগ, ওই দোকানের মালিক চুরির জিনিসপত্র কেনাবেচা করে এবং চুরির জিনিস পাওয়াও গেছে।

পুলিশ ওই দোকানের মালিককে থানায় নিয়ে গেছে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। যদিও ওই ব্যক্তির দোকানের কোনও ট্রেড লাইসেন্স নেই বলে স্বীকার করেছেন তিনি নিজেই। ঘটনায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here