ঝড়ের পূর্বাভাস, মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ, মোকাবিলার জন্য প্রস্তুতি শুরু করল প্রশাসন

আমাদের ভারত, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, ১৬ মে: বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপের ফলে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান আছড়ে পড়তে পারে দক্ষিণ ২৪ পরগণার উপকূলবর্তী এলাকাগুলিতে। আর সেই কারণেই মৎস্য দফতরের তরফ থেকে ইতিমধ্যেই সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সতর্কতা জারি করা হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসনের তরফ থেকেও। ইতিমধ্যেই এ বিষয়ে বিভিন্ন ধরণের সাবধানতা অবলম্বন করা হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে।

শনিবার সকাল থেকেই দক্ষিণ ২৪ পরগণার ডায়মন্ড হারবার, কাকদ্বীপ, বকখালি, ঝড়খালি, গোসাবা সহ বিভিন্ন উপকূলবর্তী এলাকায় মাইকিং করে প্রচার করা হয়েছে প্রশাসনের তরফ থেকে। মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে মাছ ধরতে যেতে নিষেধ করা হচ্ছে। যারা উপকূল এলাকায় মাছ ধরেন তাদেরকেও ডাঙায় উঠে আসার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও লকডাউন উপেক্ষা করে যে সমস্ত মৎস্যজীবী নদী বা গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়েছেন তাদেরকে অবশ্যই রবিবারের মধ্যে ফিরে আসতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। না হলে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও সতর্ক করেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসন। পাশাপাশি এই ঘূর্ণিঝড়ের মোকাবিলায় বিভিন্ন ধরণের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

বুলবুল থেকে শিক্ষা নিয়ে এ বিষয়ে বেশ কিছু পদক্ষেপ ইতিমধ্যেই গোসবা ব্লক প্রশাসনের তরফ থেকে নেওয়া হয়েছে। দ্বীপাঞ্চল হওয়ায় যোগাযোগের সমস্যা হতে পারে ভেবে আগামী ১৯শে জুনের মধ্যে ব্লকের সেই সমস্ত গর্ভবতী মা যাদের প্রসবের সম্ভবনা রয়েছে তাদেরকে ব্লক হাসপাতালে সরিয়ে নিয়ে আসা হচ্ছে। নদীর পাড়ে যারা বাস করেন তাদের তালিকা ইতিমধ্যেই তৈরি করে গ্রাম পঞ্চায়েত গুলিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে স্কুল বা ফ্লাড সেন্টারে সরিয়ে নিয়ে আসার জন্য। গোসাবা ব্লকের রাঙাবেলিয়া, গোসাবা, সাতজেলিয়া ও লাহিড়ীপুর এই চারটি গ্রাম পঞ্চায়েত যেখানে পানীয় জলের সমস্যা রয়েছে, সেখানকার জন্য আশি হাজার পাউচ মজুত করা হচ্ছে। এছাড়া ও বড় বড় ড্রামে করে যাতে গ্রামের অভ্যন্তরে জল পৌঁছানো যায় সেই ব্যবস্থা ও রাখা হয়েছে। বিদ্যুৎ দফতরকে বিভিন্ন পয়েন্টে পোস্ট ও ট্রান্সফরমার মজুত রাখতে বলা হয়েছে। এসবের পাশাপাশি শুকনো খাবার, ত্রিপল মজুত করা হচ্ছে। বাসন্তী ও ক্যানিং সহ জেলার অন্যান্য উপকূলবর্তী ব্লকে ও প্রাথমিক সমস্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে এই ঝড়ের মোকাবিলা করার জন্য।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here