চন্দ্রযান—২ এর উৎক্ষেপণ নিয়ে হুগলীর গুড়াপে তীব্র আগ্রহ

চন্দ্রযান—২ এর উৎক্ষেপণ নিয়ে হুগলীর গুড়াপে তীব্র আগ্রহ

আমাদের ভারত, হুগলী, ১৫ জুলাই: যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে চন্দ্রযান—২ এর উৎক্ষেপণ হয়নি, কিন্তু তাতে কি? একজন বাঙালী হয়ে বাঙালীর সাফল্যে গর্ব করা তো যেতেই পারে। এই গর্বেই বিনিদ্র রজনী কাটালেন হুগলীর গুড়াপের শিবপুর গ্রামের চন্দ্রকান্ত কুমারের পরিবার। যিনি চন্দ্রযান ২ মিশনের ডেপুটি ডিরেক্টর। মিশনের জন্য তৈরি করা যে এন্টেনার মাধ্যমে সৌরমণ্ডল থেকে বার্তা পাঠাবে মহাকাশ যান তার প্রধান তিনি। রবিবার গোটা রাত জেগেই কাটিয়েছেন পরিবার সহ এই গ্রামের মানুষ। টিভিতে খবর দেখে জানতে পারেন যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে এই মুহুর্তে চাঁদে যাচ্ছে না চন্দ্রযান। কিছুটা হতাশ হলেও সকাল হতেই মানুষের ঢল কুমার বাড়িতে। ছেলের এই সাফল্যে গর্বিত পরিবার।


ছবি: চন্দ্রকান্ত কুমার

সকাল থেকে শিবপুর গ্রামে সংবাদ মাধ্যমের লোকজনের ভিড়। বাড়ির দাওয়ায় বসে চন্দ্রকান্ত কুমারের বাবা মধুসূদন কুমার ও মা অসীমা কুমার। ছেলের সাফল্যের পাশাপাশি বলছিলেন, আজ থেকে বিশ ত্রিশ বছর আগের কথা, হুগলীর গুড়াপের এই শিবপুর গ্রামের স্কুলেই পড়াশোনা করেছেন চন্দ্রনাথবাবু। পাকা রাস্তা, আলো জল সে সবই তখন ছিল গ্রামের মানুষের কাছে স্বপ্ন। কাদা রাস্তা সন্ধে নামলেই রাস্তা জনমানবহীন হয়ে যাওয়া এই গ্রামের কৃষক মধুসূদন বাবুর একমাত্র স্বপ্ন ছিল ছেলেদের সঠিক লক্ষ্যে পৌছে দেওয়া। ভাল খাওয়া, বিলাস-ব্যসন এসব তাদের জীবনে কোনো দিন তো দূরের কথা ভাবনাতেও আসেনি।


ছবি: চন্দ্রকান্ত কুমারের বাবা মা

গ্রামের পড়াশোনা শেষ করে শহরে পাড়ি দেওয়া চন্দ্রকান্ত যে একদিন চন্দ্রযানের ডেপুটি ডিরেক্টর হবেন তা হয়ত ভাবার অতীত ছিল পরিবারের কাছে। দূর সঞ্চারেও যন্ত্র এন্টেনা নিয়েই তার যাবতীয় সাফল্য। শুধু ইসরোতেই নয় দূরসঞ্চারের সব পরীক্ষাতেই ভারত সরকারের গুডবুকে চন্দ্রকান্ত। চন্দ্রযান ১ এর সাফল্য তাঁকে তাঁর কর্মক্ষেত্রে আরও প্রতিষ্ঠিত করে।


বাড়িতে উৎসাহি মানুষের ভিড়

এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা যান্ত্রিক ত্রুটি সারিয়ে কবে চাঁদের উদ্যেশ্যে পাড়ি দেয় চন্দ্রযান। তারপরই তো পৃথিবী থেকে আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকা হাজার কোটি চোখ চন্দ্রকান্তর দৌলতে জানতে পারবে অচীন দেশের অজানা কাহিনী

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 − one =