স্বামীর অত্যাচার অতিষ্ট, স্বাধীনতা দিবসে পানাগড়ে দুই সন্তান সহ মর্মান্তিক পরিণতি গৃহবধূর

জয় লাহা, দুর্গাপুর, ১৫ আগষ্ট: মদ্যপ স্বামীর নির্মম অত্যাচারের শিকার। শেষপর্যন্ত অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে দুই সন্তানকে নিয়ে রেললাইনে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করল নির্যাতিতা গৃহবধূ। সোমবার সারা দেশ যখন আজাদি কি অমৃত মহৎসবে মাতোয়ারা। তখন মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে পানাগড় স্টেশন সংলগ্ন অনুরাগপুরে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে জিআরপি ও পুলিশ কমিশনারেট।

জিআরপি সুত্রে জানা গেছে,  মৃতা গৃহবধূর নাম সীমা পন্ডিত (৩৫), মৃত দুই ছেলের নাম প্রেম পন্ডিত(৮), প্রাণিত পন্ডিত(৬)। পানাগড় স্টেশন সংলগ্ন বুদবুদ থানার অনুরাগপুরের বাসিন্দা। সোমবার সকালে পানাগড় স্টেশন সংলগ্ন রেললাইনের ওপর তিনজনের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। খবর পেয়ে জিআরপি পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। পরিবার সুত্রে জানা গেছে, মৃতার স্বামী দশরথ পন্ডিত। পানাগড় রনডিহা মোড় এলাকায় একটি গ্যারেজে কাজ করে। অভিযোগ, প্রতিদিন মদ্যপান করে বাড়িতে অত্যাচার করত। স্ত্রীকে ও দুই সন্তানকে নির্মমভাবে মারধর করত। রবিবার রাতে অত্যাচার চরমে পৌঁছয়।

মৃতার শ্বশুর উমাশঙ্কর পন্ডিত জানান,” শনিবার রাতে অন্যান্য দিনের মতই মদ খেয়ে বাড়িতে ফেরে ছেলে। তারপর বউকে মারধর শুরু করে। অনেক বোঝানোর চেষ্টা করেছি ছেলেকে। কারও কথা শোনেনি। বাঁচাতে গেলে আমাদেরও মারধর করে।রাতে ওইভাবে অত্যাচার করে বেরিয়ে যায় ছেলে।”

সোমবার ভোরে সীমা পন্ডিত তার দুই সন্তানকে নিয়ে বেরিয়ে পড়ে। সকালে পানাগড়ে রেল লাইনের ওপর তাদের ছিন্নভিন্ন মৃতদেহ উদ্ধার হয়। খবর পেয়ে জিআরপি পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। ঘটনার পর পলাতক মৃতার স্বামী দশরথ পন্ডিত।  ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে জিআরপি ও কমিশনারেট পুলিশ।  

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here