বামেদের সভাকে তৃণমূলের মদতপুষ্ট সিপিমূলের সভা বলে কটাক্ষ সুকান্ত‌ মজুমদারের

আমাদের ভারত, ২০ সেপ্টেম্বর: চোর ধরো জল ভরো, চাকরি চাই, আনিস খানের হত্যার বিচার চাই সহ একাধিক দাবি নিয়ে আজ কলকাতার রাজপথে আন্দোলনে শামিল হয় বাম ছাত্র-যুবরা। আর সেই মিছিলকেই সিপিমূলের মিছিল বলে কটাক্ষ করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। তাঁর বক্তব্য, এটা বামেদের মিছিল নয় সিপিএম-তৃণমূল মিলে বিরোধী শক্তি হিসেবে এই রাজ্যে বামেদের প্রাসঙ্গিক করে তুলতে সিপিমূলের মিছিল ছিল। তাঁর দাবি, তৃণমূল ও সিপিএমের ফিশফ্রাই পলিটিক্স যে বজায় আছে সেটা আজ আবার প্রমাণিত হয়ে গেল।

সিপিএম যখন তৃণমূল আর বিজেপির সেটিং তত্ত্বের কথা বলে তখনই সুকান্ত এর প্রবল বিরোধিতা করে দাবি করেন, আসলে সেটিং আছে সিপিএম আর তৃণমূলের। তিনি টেনে আনেন নবান্নে বিমান বসুকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফিশফ্রাই খাওয়ানোর প্রসঙ্গও। তাঁর দাবি, বিজেপিকে দুর্বল করতে তৃণমূল ইচ্ছে করে সিপিএমকে হাওয়া দিচ্ছে। তাই তাদের সভা, মিছিল সহ বিভিন্ন কর্মসূচি সফল করছে দায়িত্ব সহকারে। মঙ্গলবার বামেদের সভা সম্পর্কেও তিনি একই দাবি করেছেন।

সুকান্ত মজুমদার প্রশ্ন তোলেন, বিজেপি কোনো আন্দোলন কর্মসূচি করতে গেলে পুলিশের অনুমতি না থাকলে তাদের রাজনৈতিক কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হয়। আর শহর কার্যত স্তব্ধ করে দেওয়া এদিনের বামেদের মিছিলকে সভাস্থল পরিবর্তন করে তৃণমূলের একুশে জুলাই মঞ্চে দিকে করা হলেও পুলিশ কেন নীরব থাকলো? বিজেপির রাজনৈতিক কর্মসূচি ঠেকাতে পুলিশ অতি সক্রিয় থাকে আর বামেদের ক্ষেত্রে কোনো রকম সক্রিয়তা কেন দেখালো না পুলিশ? এ থেকে প্রমাণিত হয় তৃণমূল–সিপিএম এর মধ্যে এখনও ফিস ফ্রাই পলিটিক্স বজায় আছে।

তিনি আরো বলেন, “এটাকে বামেদের মিছিল বলা ভুল হবে। এটা সিপিমূলের মিছিল ছিল। এই মিছিলে সিপিএমের থেকে বেশি তৃণমূলের লোক ছিল। এখানে ভুল করে জয় বাংলা বলেনি এটাই অনেক। বিরোধী জোটকে ভাগ করার জন্য স্পন্সর করা হচ্ছে এই ধরনের আন্দোলনকে, যাতে সিপিএমের মাধ্যমে বিজেপির কিছু ভোট কাটা যায়। সেইজন্য তৃণমূল সুপারি দিয়েছে মহম্মদ সেলিমকে।”

তৃণমূল মুখপাত্র কুনাল ঘোষ দাবি করেছেন, বিজেপির নবান্ন অভিযানে চেয়ে এই সভা অনেক ভালো। ২০১১ সালে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর এটাই ওদের বৃহত্তম সমাবেশ। অর্থাৎ রাজ্য রাজনীতির সম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহের দিকে নজর রাখলে দেখা যাচ্ছে শাসক শিবির থেকে বামেদের বিষয়ে প্রচ্ছন্নভাবে একটি ইতিবাচক কথা বলা হচ্ছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here