ব্যাঙ্কশাল আদালতে বিচারককে লক্ষ্য করে জুতো ছুঁড়ল সন্দেহভাজন আইএস জঙ্গি মুসা

6

সৌভিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা, ৪ ফেব্রুয়ারি: আলিপুর জেল প্রেসিডেন্সি জেল এর পর এবার ব্যাঙ্কশাল আদালতে ফের কীর্তি মুসার। মঙ্গলবার ব্যাঙ্কশাল আদালতে বিচার চলাকালীন অধৈর্য হয়ে বিচারকের দিকে লক্ষ্য করে জুতো ছুঁড়ল সন্দেহভাজন আইএস জঙ্গি মুসা। চিৎকার করে বলল,‘আমার বিচার আল্লা করবেন। আপনার অধিকার নেই’। জুতোর ঘায়ে জখম হয়েছেন এক আইনজীবী।

মঙ্গলবার ১২টা ব্যাঙ্কশাল আদালতে মুখ্য বিচারক প্রসেনজিৎ বিশ্বাসের ঘরে সেইসময় সাক্ষ্যগ্রহণ চলছিল। তখন হঠাৎই চিৎকার করে ওঠে ধৃত আইএস জঙ্গি মুসা। সে বলতে শুরু করে, ‘আমার বিচার আল্লা করবে। মানুষ করবে না। আপনার বিচার করার কোনও অধিকার নেই।” তাঁর বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ, মুসা বিচারককে উদ্দেশ করে গালিগালাজ করতে থাকে। আত্মহত্যার হুমকিও দেয় ধৃত আইএস জঙ্গি। এরপরই জুতো ছুঁড়ে মারে সে। যা সামান্য বিচ্যুত হয়ে গিয়ে লাগে এক আইনজীবীর কানে। সঙ্গে সঙ্গেই তাঁকে ধরে ফেলে পুলিশ। এরপর তাঁকে ধরে লকআপে নিয়ে যাওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের অক্টোবরে বর্ধমানের খাগড়াগড়ের বিস্ফোরণের পর থেকেই আইএস জঙ্গি মুসার খোঁজে ছিলেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারীরা। অবশেষে ২০১৭-র জুলাইতে সে ধরা পড়ে। প্রথমে সিআইডি-র হেফাজতে থাকলেও, পরে এনআইএ তাকে হেফাজতে নেয়। আলিপুর কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারে পাঠানো হয় তাকে। একটি চামচকে লুকিয়ে রেখে তাতে ক্রমাগত শান দিয়ে ধারালো অস্ত্র বানায় মুসা। তারপর ওই সংশোধনাগারের থাকাকালীন আধিকারিকের গলায় কোপ দিয়ে তাঁকে খুনের চেষ্টা করেছিল মুসা। চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি প্রেসিডেন্সি জেলে ওয়ার্ডেন অমল কর্মকারকে জলের পাইপ দিয়ে খুনের চেষ্টা করেছিল মুসা। বিভিন্ন সময়ে তার কীর্তিতে তটস্থ জেলের অফিসাররা। এবার আদালতেও সে তার কীর্তি দেখিয়ে দিল। কিভাবে মুসাকে এই ধরনের পাগলামি থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে সেটা নিয়ে আপাতত চিন্তায় পুলিশ আধিকারিকরা। প্রয়োজনে মনোবিদের সাহায্য নেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here